kalerkantho

সোমবার । ১৪ অক্টোবর ২০১৯। ২৯ আশ্বিন ১৪২৬। ১৪ সফর ১৪৪১       

মনোহরদীতে ব্যবসায়ীকে অপহরণ

পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতির ছেলেসহ পাঁচজন গ্রেপ্তার

নরসিংদী প্রতিনিধি   

৬ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নরসিংদীর মনোহরদী বাসস্ট্যান্ড থেকে প্রকাশ্যে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মিলন খান (৫০) নামে এক ব্যবসায়ীকে মাইক্রোবাসে তুলে নেওয়ার ঘটনায় পাঁচ আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত রবিবার রাতে তাদের নিজ নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলো—মনোহরদী উপজেলার কোচের চর গ্রামের জয়নুদ্দিনের ছেলে আলম শেখ, মনোহরদী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি কফিল উদ্দিনের ছেলে আরিফ আল কফি, সল্লাবাইদ গ্রামের হারুন অর রশিদের ছেলে বাপ্পী, বিরিকের ছেলে টিপু ও সুলতান উদ্দিনের ছেলে সাইফুল ইসলাম।

জানা যায়, মনোহরদী উপজেলার নামা গোতাশিয়া গ্রামের মিলন খান এক বছর আগে পৌর বাসস্ট্যান্ডসংলগ্ন এলাকায় সাড়ে সাত শতাংশ জমি দুই কোটি ২৫ লাখ টাকা দাম নির্ধারণ করে কাপাসিয়া উপজেলার দক্ষিণগাঁও গ্রামের আজম সরকারের কাছে বিক্রির জন্য মৌখিকভাবে চুক্তি করেন। আজম সরকার তাৎক্ষণিক জমির মালিক মিলন খানকে ৫৭ লাখ টাকা নগদ পরিশোধ করেন। বাকি টাকা সাত মাসে পরিশোধ করার পর জমি রেজিস্ট্রির সিদ্ধান্ত হয়।

অভিযোগে জানা যায়, গত রবিবার সকালে জমির মালিক মিলন খানকে মোবাইল ফোনে আজম সরকার বলেন, আজ জমির পাওনা টাকা পরিশোধ করে জমি রেজিস্ট্রি করা হবে। সে অনুযায়ী মিলন খান সকাল ৯টায় মনোহরদী বাসস্ট্যান্ডে এলে আজম সরকার, মনোহরদী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি কফিল উদ্দিনের দুই ছেলে আরিফ আল কফি ও আশিক আল কফি, ভাতিজা বাপ্পি, সল্লাবাইদ গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে হিরণ, সুলতান মিয়ার ছেলে সাইফুল ইসলাম, বিরিক মিয়ার ছেলে টিপু, আবুল হাসিমের ছেলে জুয়েল, কোচের চর গ্রামের জয়নুদ্দিনের ছেলে আলম শেখ, রফি মিয়ার ছেলে আব্দুল কাদির, কাচের চর গ্রামের জয়নুদ্দিনের ছেলে আলম শেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরো কয়েকজন জোরপূর্বক মিলন খানকে মাইক্রোবাসে করে উপজেলার দক্ষিণগাঁও গ্রামের মরিয়ম ট্রাস্ট ফাউন্ডেশন ভবনের একটি কক্ষে নিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে পাঁচটি খালি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়। খবর পেয়ে মিলন খানের ছোট বোন মনোহরদী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ মিলনকে উদ্ধার করে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা