kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

আলোর ফেরিওয়ালা

বিদ্যুৎ সংযোগ পেল চকরিয়ার চরণদ্বীপের ২৫০ পরিবার

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘আলোর ফেরিওয়ালা’ কর্মসূচির অধীনে সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে কক্সবাজারের চকরিয়া ও পেকুয়ায় মাত্র পাঁচ মিনিটে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। শুধু আবাসিক সংযোগের ক্ষেত্রে জামানত হিসেবে ৪০০ টাকা ও সদস্য ফি হিসেবে মাত্র ৫০ টাকা জমা দিয়েই এই বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এ নিয়ে এ পর্যন্ত ‘আলোর ফেরিওয়ালা’র ব্যানারে দুই উপজেলায় বিদ্যুৎ সংযোগ পেয়েছে প্রায় ছয় হাজার পরিবার।

গতকাল শনিবার সকালে একই সুবিধার আওতায় একসঙ্গে ২৫০ পরিবারকে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে চকরিয়া উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নে ৮ নম্বর ওয়ার্ডের চরণদ্বীপ গ্রামে। এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চিরিঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জসীম উদ্দিন, কক্সবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির চকরিয়া জোনাল অফিসের ডিজিএম মো. মোসাদ্দেকুর রহমান, সাবেক চেয়ারম্যান খাজা মো. ছালাহউদ্দিন, ওয়্যারিং পরিদর্শক গোপাল চন্দ্র দাশ, আবু জাফর, ওয়ার্ডের মেম্বারসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি ও উপকারভোগীরা।

মো. মোসাদ্দেকুর রহমান জানান, চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারি সারা দেশের মতো চকরিয়া ও পেকুয়ায় ‘আলোর ফেরিওয়ালা’র ব্যানারে একেবারে বিনা মূল্যে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানের কার্যক্রম শুরু হয়। এর পর থেকে দুই উপজেলার ২৫টি ইউনিয়নের অন্তত ছয় হাজার পরিবার পেয়েছে বিদ্যুৎ সংযোগ। এতে এসব পরিবার পল্লী বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হয়েছে। একইভাবে আজ (গতকাল) চকরিয়ার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের চরণদ্বীপ এলাকার ২৫০ পরিবার একসঙ্গে বিদ্যুৎ সংযোগের আওতায় এসেছে। এ জন্য ১১ কিলোমিটার বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনও চালু করা হয়েছে। এই কার্যক্রম চলমান থাকবে, যত দিন পর্যন্ত শতভাগ পরিবার বিদ্যুতের আওতায় না আসবে।

সংসদ সদস্য জাফর আলম কালের কণ্ঠকে বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা রয়েছে পুরো বাংলাদেশে একটি ঘরও বিদ্যুৎ সংযোগ ছাড়া থাকবে না। শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতায় নিয়ে আসার জন্য চকরিয়া ও পেকুয়ায় ‘আলোর ফেরিওয়ালা’র ব্যানারে একেবারে বিনা মূল্যে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। এরই অংশ হিসেবে আজ চিরিঙ্গা ইউনিয়নের দুর্গম চরণদ্বীপ গ্রামের ২৫০ পরিবার পেয়েছে বিদ্যুৎ সংযোগ। আমার নির্বাচনী ওয়াদাও ছিল ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার।”

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা