kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক

বৃষ্টির কারণে ঈদ যাত্রায় ভোগান্তির আশঙ্কা

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের গাজীপুরের কালিয়াকৈরে আসন্ন ঈদুল আজহায় ঘরমুখো মানুষের দুর্ভোগের কারণ হতে পারে বৃষ্টি। আবহাওয়া অনুকূলে না থাকলে মহাসড়কের সফিপুর ফ্লাইওভার এবং খাড়াজোড়া এলাকার ওভারপাস নির্মাণের কাজ করায় সেখানে সীমাহীন দুর্ভোগ হতে পারে। পথচারী, যাত্রী এবং চালকদের দাবি, মহাসড়কের সফিপুর, চন্দ্রা, খাড়াজোড়াসহ বিভিন্ন পয়েন্টে এখনো কাজ চলমান। ঈদের আগেই ওই সব পয়েন্টের কাজ শেষ না হলে ঈদে যানজটের আশঙ্কা রয়েছে।

জানা যায়, দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক। রাজধানী থেকে উত্তরবঙ্গে  যোগাযোগের একমাত্র সড়ক এটি। এ মহাসড়ক দিয়ে উত্তরাঞ্চলে ১৬টি জেলার যানবাহন চলাচল করে। পাশাপাশি গাজীপুর শিল্প এলাকার শত শত যানবাহন এবং হাজার হাজার লোক যাতায়াত করে এ মহাসড়কে। এ মহাসড়কের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট হচ্ছে কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা ত্রিমোড়। এরই মধ্যে চন্দ্রা ফ্লাইওভার খুলে দেওয়া হলেও দুই পাশে সংযোগ সড়কে এখনো পিচ ঢালাই কাজ করা হয়নি। এ ছাড়া ফ্লাইওভারের নিচে এখনো রাস্তা ঢালাইয়ের কাজ চলছে। কাজ চলছে চন্দ্রাসহ কালিয়াকৈর উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি অংশেও।

এ ছাড়া ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের সফিপুর বাজারে নতুন করে ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হচ্ছে। ফলে সফিপুর বাজারের যানবাহনগুলোকে ওয়ানওয়েতে চলাচল করতে হচ্ছে। বৃষ্টিতে সেখানে যানবাহন চলাচল তো দূরের কথা হেঁটে চলাই দায়। প্রায় প্রতিদিনই সফিপুর বাজারে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এমনিতেই যানজট আর ঈদে ঘরমুখো মানুষের দুর্ভোগের অন্যতম কারণ হতে সফিপুর বাজার। অন্যদিকে মহাসড়কের খাড়াজোড়া এলাকায় ওভারপাস নির্মাণের কাজ করা হচ্ছে। এতে সড়কের ওই স্থানে যানবাহনের চলাচল এমনিতেই কষ্টদায়ক, তার মধ্যে বৃষ্টি হলে দুর্ভোগ আরো বাড়ার শঙ্কা রয়েছে।

সরেজমিনে গতকাল শনিবার সড়কের সফিপুর বাজারে গিয়ে দেখা যায়, ফ্লাইওভার নির্মাণকাজ চলমান। যানবাহনগুলোকে ওয়ানওয়েতে চলাচল করতে হচ্ছে। এ সময় কথা হয় বাসচালক আরজু সরকারের সঙ্গে। তিনি বলেন, এবার ঈদের আবহাওয়া অনুকূলে না থাকলে ভোগান্তির কারণ হতে পারে সফিপুর বাজার।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী ও সাউথ এশিয়া সাবরিজিওনাল ইকোনমিক কো-অপারেশন (সাসেক) প্রজেক্টের এক নম্বর প্যাকেজের প্রকল্প ব্যবস্থাপক শাহানা ফেরদৌস বলেন, ঈদের এক সপ্তাহ আগে সড়কের কাজ বন্ধ করে দেওয়া হবে, যাতে ঈদ যাত্রায় মানুষের দুর্ভোগ না হয়। এ ছাড়া সড়কের ছোটখাটো সংস্কারকাজ চলবে। সালনা (কোনাবাড়ি) হাইওয়ে থানার ওসি মজিবুর রহমান বলেন, চন্দ্রা এবং কোনাবাড়ী ফ্লাইওভার খুলে দেওয়ার কারণে গত ঈদ যাত্রা স্বস্তিদায়ক ছিল। তবে চার লেন কাজ চলমান থাকায় কিছু স্থানে যানবাহনের ধীরগতি হলেও এবার ঈদে যানজট পড়বে না। এ ছাড়া সেখানে যত্রতত্র গাড়ি থামতে দেওয়া হবে না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা