kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

ধর্ষণচেষ্টা-বলাৎকারের অভিযোগ

দুই শিক্ষকসহ গ্রেপ্তার ৩

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফরিদপুরে শিশু ধর্ষণচেষ্টা, খুলনায় মাদরাসাছাত্রকে বলাৎকার এবং বগুড়ার শাজাহানপুরে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগে দুই শিক্ষকসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আমাদের আঞ্চলিক কার্যালয়, নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধির পাঠানো খবর :

ফরিদপুর : সদরপুরে গতকাল চার বছর বয়সী শিশুকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে আব্দুল সালাম (৬০) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাঁর বাড়ি উপজেলার পূর্ব শ্যামপুর গ্রামে। পুলিশ জানায়, গতকাল সকালে আব্দুল সালাম টিভি দেখার কথা বলে দরজা বন্ধ করে শিশুটিকে ধর্ষণের চেষ্টা চালান।

খুলনা : খালিশপুরের নিউজপ্রিন্ট মিলস মাদরাসার এক ছাত্রকে (৮) বলাৎকারের অভিযোগে শুক্রবার দিবাগত গভীর রাতে গ্রেপ্তার করা হয় প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক আল আমিনকে (২৭)। এর আগে এ ঘটনায় ছাত্রটির মা থানায় মামলা করেন। আল আমিন গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীর সাতাইশে গ্রামের মৃত শামছুল হকের ছেলে।

ভুক্তভোগীর পরিবার ও পুলিশ জানায়, জেলার দিঘলিয়া থানার শিশুটি মাদরাসাটির বোর্ডিংয়ে থেকে পড়াশোনা করে। শিক্ষক আল আমিনও বোর্ডিংয়ের একই কক্ষে থাকেন। ছাত্রটির মা গত ১ আগস্ট ছেলেকে দেখতে মাদরাসায় যান। ছেলের অবস্থা খারাপ দেখে তার কাছে জানতে পারেন, শিক্ষক আল আমিন গত বুধবার রাতে তাকে মাদরাসার অজুখানায় নিয়ে পিটিয়ে বলাৎকার করেছেন। এর আগেও বেশ কয়েকবার আল আমিন এ অপকর্ম করেছেন। গতকাল তাঁকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

শাজাহানপুর : শাজাহানপুর উপজেলার মাদলা মালিপাড়া আরআরএমইউ উচ্চ বিদ্যালয়ের গ্রেপ্তার শিক্ষকের নাম আব্দুল মজিদ। শুক্রবার বিকেলে শেরপুর উপজেলার মহিপুর থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে তিনি দোষী প্রমাণিত হওয়ায় তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি।

অভিযোগ মতে, গত রবিবার ছাত্রীটিকে শ্রেণিকক্ষে যৌন হয়রানি করেন আব্দুল মজিদ। মঙ্গলবার ছাত্রীটির বাবা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে অভিযোগ দিলে ওই দিন বিকেলে ম্যানেজিং কিমিটির বৈঠকে আব্দুল মজিদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয় এবং কেন তাঁকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হবে না মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা