kalerkantho

রবিবার । ২১ জুলাই ২০১৯। ৬ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৭ জিলকদ ১৪৪০

ধুনটে দুই সন্তানের জননীকে ধর্ষণ

♦ পৃথক ঘটনায় চিকিৎসাকেন্দ্রের পরিচালক আটক
♦ শিশুকে ধর্ষণচেষ্টা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বগুড়ার ধুনট উপজেলায় এক নারীকে তাঁর বাবার বাড়িতে ঘরে ঢুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। একই উপজেলায় মাকে আটকের সংবাদ পেয়ে থানায় গিয়ে ধরা দিয়েছে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি। কুমিল্লার লাকসামে ধর্ষণের অভিযোগে একটি চিকিৎসাকেন্দ্রের পরিচালককে আটক করেছে র‌্যাব। রাজবাড়ীতে শিশুকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

ধুনট : বুধবার মধ্যরাতে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার ইকবাল হোসেন (৩০) ধুনট উপজেলার মথুরাপুর ইউনিয়নের ধেরুয়াহাটি গ্রামের আলীমুদ্দিনের ছেলে। মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার দুই সন্তানের জননী এক নারীকে ইকবাল দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এতে সাড়া না পেয়ে সে তাঁকে উত্ত্যক্ত করছিল। বিষয়টি ইকবালের পরিবারকে জানালে সে ক্ষুব্ধ হয়। গত ৭ জুন রাতে ইকবাল ওই নারীকে তাঁর ঘরে ঢুকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ধর্ষণ করে।

এ ঘটনায় ওই নারীর মা বুধবার রাতে ধুনট থানায় ধর্ষণ মামলা করেন। মামলায় ইকবাল এবং তার ভাই আল আমিন ও আল মাহমুদকে আসামি করা হয়েছে।

ধুনট থানার ওসি ইসমাইল হোসেন বলেন, প্রধান আসামিকে গতকাল বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে বগুড়া জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ওই নারীকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ও জবানবন্দি রেকর্ডের জন্য বগুড়া আদালতে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে ধুনটে স্কুলছাত্রী ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি পলাতক বকুল হোসেন মণ্ডলকে (২৩) গ্রেপ্তারের কৌশল হিসেবে তার মা কহিনুর খাতুনকে ৭ জুন দুপুরে নিজ বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। থানা থেকে মা চার দিন ধরে মোবাইল ফোনে ছেলে বকুলের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। অবশেষে গতকাল সকালে বকুল ধুনট থানায় গিয়ে ধরা দিলে মাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

বকুল উপজেলার ভাণ্ডারবাড়ী ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের অফফের আলীর ছেলে। বকুলের ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীটি গত ১ জানুয়ারি সন্তান প্রসব করেছে।

লাকসাম : লাকসাম জংশন এলাকার হাজী শাহজাহান মার্কেটে বেসরকারি চিকিৎসাকেন্দ্র ‘ডিজিটাল অ্যাডভাইস সেন্টারের’ এক কর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগে সেন্টারটির পরিচালক মো. মীর হোসেনকে বুধবার আটক করে র‌্যাব-১১। সে লাকসাম পৌর এলাকার বাইনছাটিয়া গ্রামের মো. খোরশেদ আলমের ছেলে। বুধবারের ওই অভিযানের সময় র‌্যাব প্রতিষ্ঠানটি থেকে বেশ কিছু যৌন উত্তেজক বড়ি, কনডম, একটি কম্পিউটার ও কিছু ভুয়া সনদপত্র উদ্ধার এবং প্রতিষ্ঠানের এক কর্মীকে (১৮) আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদের পর তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

র‌্যাব জানায়, ডিজিটাল অ্যাডভাইস সেন্টারের চিকিৎসক সেজে মো. মীর হোসেন দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে চিকিৎসা দিচ্ছিল। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানের এক কর্মীকে সে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় গত সোমবার ওই কর্মী কুমিল্লা র‌্যাব-১১-তে লিখিত অভিযোগ দেন।  

ভুক্তভোগী কর্মীর অভিযোগ, তাঁকে দীর্ঘদিন ধরে মীর হোসেন ব্যথানাশক ইনজেকশন দিয়ে ও ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করে আসছিল।

রাজবাড়ী : বুধবার দুপুরে শিশু (সাড়ে চার বছর) ধর্ষণচেষ্টায় অভিযুক্ত চয়ন সরদার (১৮) রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানগঞ্জ ইউনিয়নের হাটবাড়িয়া গ্রামের জুলহাস সরদারের ছেলে। তাকে বুধবার রাতে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল রাজবাড়ী হাসপাতালে শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা এবং থানায় মামলা করা হয়েছে।

মামলার বাদী শিশুটির মা জানান, শিশুটি বাড়ির পাশে খেলাধুলা করার সময় চয়ন তাকে মাছ ধরার কথা বলে ফুসলিয়ে পাটক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

রাজবাড়ী থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার মামলা ও আসামিকে গ্রেপ্তার করার কথা নিশ্চিত করেছেন।

মন্তব্য