kalerkantho

শনিবার । ২০ জুলাই ২০১৯। ৫ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৬ জিলকদ ১৪৪০

বকেয়া বেতন দাবি

পৌর কর্মচারীদের অবস্থান কর্মসূচি রবিবার থেকে

নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়া   

১২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে বকেয়া বেতন-ভাতা ও পেনশন দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া না হলে আগামী রবিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছে দেশের ৩২৮টি পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এ সময় সব ধরনের নাগরিক সেবা বন্ধ থাকবে বলে জানায় তারা।

গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে বগুড়া থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বগুড়া জেলা কমিটির সভাপতি মামুনুর রশিদ এসব তথ্য জানান।

মামুনুর রশিদ বলেন, পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী দেশের সব পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারী আগামী রবিবার ঢাকায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অনির্দিষ্টকালের জন্য অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেবে। ফলে তাদের পক্ষে নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করা সম্ভব হবে না এবং নাগরিকসেবা দেওয়াও সম্ভব হবে না। ঢাকায় অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে শুধু পাইপলাইনে পানি সরবরাহ চালু রাখা হবে।

আন্দোলনের যৌক্তিকতা তুলে ধরে তিনি বলেন, দেশের সংবিধান অনুযায়ী পৌরসভা রাষ্ট্রীয় তথা সরকারি প্রতিষ্ঠান এবং তাতে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। পৌরসভা শহর কেন্দ্রিক অবকাঠামো উন্নয়ন, পরিচ্ছন্নতা, ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন, পয়োনিষ্কাশন, সড়ক আলোকিত করা এবং বিভিন্ন সনদ প্রদান ও নিবন্ধনসহ অন্তত ২০ ধরনের সেবা নাগরিকদের দিয়ে থাকে। আইন অনুযায়ী, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান হিসেবে পৌরসভার নিজস্ব আয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দেওয়ার বিধান থাকলেও দেশের ৯০ শতাংশ পৌরসভার পর্যাপ্ত আয় বা রাজস্ব না থাকায় বর্তমানে স্থানভেদে তিন থেকে ৬৬ মাস পর্যন্ত তাদের বেতন-ভাতা বকেয়া রয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে পৌরসভা সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের বগুড়া জেলা শাখার উপদেষ্টা ও বগুড়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আবু হেনা মোস্তফা কামাল বলেন, স্থানীয় সরকারের অধীন অন্য দুই প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতার ৭৫ শতাংশ এবং জেলা পরিষদের জন্য শতভাগ বেতন-ভাতা রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে মেটানো হয়। বঞ্চনার শিকার হচ্ছে শুধু পৌর কর্মচারীরা।

মন্তব্য