kalerkantho

মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকায়

রোহিঙ্গা ইস্যুতে আরো ভূমিকা চায় বাংলাদেশ

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৭ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রোহিঙ্গা পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করতে তিন দিনের সফরে গতকাল শনিবার ঢাকায় এসেছেন মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইফুদ্দিন বিন আবদুল্লাহ। গত বছর পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর বাংলাদেশে এটিই তাঁর প্রথম সফর।

ঢাকার একাধিক কূটনৈতিক সূত্রে জানা যায়, সফরের অংশ হিসেবে আজ রবিবার তিনি কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবিরে যাবেন। এরপর আজই ঢাকায় ফিরে সন্ধ্যায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গেও তাঁর সাক্ষাৎ করার কথা আছে।

জানা গেছে, মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এ সফরে বাংলাদেশ রোহিঙ্গা ইস্যুতে দেশটির কাছে আরো জোরালো ভূমিকা চাইবে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে মালয়েশিয়া বেশ সরব। তবে আসিয়ানের অনেক সদস্যই এখন পর্যন্ত রোহিঙ্গা ইস্যুকে মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে মনে করে।

গত মাসে থাইল্যান্ডে আসিয়ান শীর্ষ সম্মেলনের সময় মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ রোহিঙ্গা নিপীড়নের জবাবদিহি নিশ্চিত করার আহ্বান জানান। ওই সম্মেলন শেষে আসিয়ানের চেয়ারম্যান ও থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুত চান-ও-চার বিবৃতিতে রোহিঙ্গা সংকটের মূল কারণগুলোর টেকসই ও সমন্বিত সমাধানের ব্যাপারে আসিয়ান নেতাদের প্রত্যাশা স্থান পেয়েছে।

ওই সম্মেলনের কয়েক দিন আগে আসিয়ানের ফাঁস হওয়া এক প্রতিবেদনে রোহিঙ্গা সংকটের ব্যাপারে ওই জোটের যে দৃষ্টিভঙ্গি ফুটে উঠেছিল তা নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়। ওই প্রতিবেদনে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গার সংখ্যা মাত্র পাঁচ লাখ এবং মাত্র দুই বছরের মধ্যে তাদের প্রত্যাবাসন সম্ভব বলে উল্লেখ করা হয়েছিল।

কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানায়, ফাঁস হওয়া ওই প্রতিবেদনে রোহিঙ্গার সংখ্যা নিয়ে বাংলাদেশ তার আপত্তির কথা আসিয়ান দেশগুলোকে বিভিন্ন ফোরামে বলেছে। মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশে বিভিন্ন পর্যায়ের বৈঠকেও এ বিষয়টি তুলে ধরা হবে।

জানা গেছে, রোহিঙ্গা সংকট ছাড়াও মালয়েশিয়ার সঙ্গে বাণিজ্য ও শ্রমবাজারে বাংলাদেশিদের জন্য সুযোগ সৃষ্টি এবং বিদ্যমান সমস্যাগুলো নিয়েও আলোচনা হওয়ার কথা। মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদকে সফরে আসতে বাংলাদেশ আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। এ বিষয়টি নিয়েও ঢাকায় আজকের বৈঠকগুলোতে আলোচনা হতে পারে।

মন্তব্য