kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

‘কাগতিয়া মাদরাসাকে স্বাধীনতাবিরোধীদের হাতে তুলে দেওয়ার অপচেষ্টা চলছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চট্টগ্রামের রাউজানে গত ১৭ এপ্রিল থেকে দফায় দফায় কাগতিয়া দরবার শরিফ ও মুনিরীয় যুব তবলীগের অনুসারীদের ওপর হামলা, বিভিন্ন স্থানে অবস্থিত ২৬টি তরিকতের খানকা ও অফিস ভাঙচুর, তরিকত অনুসারীর বাড়িঘর ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, নিরীহ মানুষকে ভয়ভীতি প্রদর্শন এবং স্বার্থান্ব্বেষী মহলের অত্যাচারের ফলে তরিকতের শত শত অনুসারী ঘরছাড়া। এমনকি পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিনেও তারা বাড়ি ফিরতে পারেনি। এসব বন্ধে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছে কাগতিয়াবাসী।

মুনিরীয়া যুব তবলীগের সহসভাপতি মোহাম্মদ আসাদুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, একটি স্বার্থান্ব্বেষী মহল দীর্ঘদিন ধরে তাদের হীনস্বার্থ বাস্তবায়নে সুন্নি আকাইদভিত্তিক কাগতিয়া দরবার শরিফ, মাদরাসা ও সংগঠনকে ধ্বংসের পাঁয়তারা করছে। তারা এই দরবার শরিফ ও মাদরাসাকে স্বাধীনতাবিরোধীদের হাতে তুলে দেওয়ার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। রাউজান থেকে ১৯৯৬ সালে দাঁড়িপাল্লা প্রতীক নিয়ে সংসদ নির্বাচন করা জামায়াত নেতা মাওলানা জামাল হোসেনের মাধ্যমে এই কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা হচ্ছে। এসব কর্মকাণ্ডের সঙ্গে তাঁর দুই ছেলেও জড়িত। তাঁর ছেলে আল-আমীন সাব্বির ও আল-আমীন সাদেক জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।

মোহাম্মদ আসাদুর রহমান বলেন, কাগতিয়া দরবার শরিফ সুদীর্ঘকাল থেকে ইসলামের শরীয়ত ও তরিকতের প্রচারকেন্দ্র হিসেবে দেশ-বিদেশে খ্যাতি অর্জন করেছে। কিন্তু একটি স্বার্থান্ব্বেষী মহল এই দরবার শরিফ, মাদরাসা ও সংগঠন ধ্বংসের পাঁয়তারা করছে। মহলটি দরবার শরিফ মসজিদে নামাজ পড়তে আসা মুসল্লিদের নানাভাবে বাধা দিচ্ছে। এমনকি তরিকতপন্থিদের ধরে এনে মারধর ও জোরপূর্বক দরবারের বিরুদ্ধে মিথ্যা স্বীকারোক্তি নিচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা