kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৩০ জমাদিউস সানি ১৪৪১

অনেক অসংগতির দাবি

ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতাদের কাদের সিদ্দিকীর চিঠি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট পরিচালনায় অনেক অসংগতি রয়েছে দাবি করে জোটের শীর্ষ নেতাদের চিঠি দিয়েছেন ফ্রন্টের শরিক দল কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি আবদুল কাদের সিদ্দিকী। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান স্বাক্ষরিত এই চিঠি জোটের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন ছাড়াও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, ঐক্যফ্রন্ট স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু ও নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরীকে দেওয়া হয়েছে। গতকাল শনিবার রাতে এই চিঠি স্টিয়ারিং কমিটির সদস্যদের কাছে পাঠানো হয়।

চিঠিতে কাদের সিদ্দিকী বলেন, “নির্বাচনে ক্ষতিগ্রস্ত নেতাদের পাশে দাঁড়াতে ব্যর্থ, প্রহসনের নির্বাচনী নাটক প্রত্যাখ্যান করে সুলতান মোহাম্মদ মনসুরের শপথ, মোকাব্বির খানের শপথগ্রহণের পর ‘গেট আউট’, আবার গণফোরামের বিশেষ কাউন্সিলে তাঁর উপস্থিতি জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে। রাস্তাঘাটে জবাব দেওয়া যাচ্ছে না।”

চিঠিতে বলা হয়, ‘দেশে নারী-শিশু ধর্ষণ ও হত্যা মহামারি আকার ধারণ করেছে। কিন্তু ঐক্যফ্রন্ট হিসেবে এর প্রতিকারে তেমন কোনো ভূমিকা রাখা যাচ্ছে না বা রাখা হচ্ছে না। সর্বশেষ বিএনপির পাঁচ সংসদ সদস্যের শপথ নেওয়াকে স্বাগত জানানো এবং মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের শপথ নেওয়া থেকে বিরত থাকা—এসব এক জাতীয় প্রশ্নের সৃষ্টি করেছে।’ চিঠিতে আরো বলা হয়, ‘জনগণের মনে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে যেসব প্রশ্ন জেগেছে তার যথাযথ প্রতিকার ও প্রতিবিধান কামনা করছি। না হলে অত্যন্ত বেদনার সঙ্গে আগামী ৯ জুন বা পরবর্তী সময়ে দলের মধ্যে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগকে ঐক্যফ্রন্ট থেকে প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হব।’

চিঠি পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আগামী সপ্তাহে ফ্রন্টের বৈঠক ডাকা হবে। আশা করি একটা সমাধান বের হবে। তাহলে সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা