kalerkantho

বুধবার। ১৯ জুন ২০১৯। ৫ আষাঢ় ১৪২৬। ১৫ শাওয়াল ১৪৪০

পাটুরিয়ায় দীর্ঘ যানজট দুর্ভোগে যাত্রীরা

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি   

২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পদ্মায় পানি বৃদ্ধির কারণে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ রুটে ফেরি চলাচলে ধীরগতি দেখা দিয়েছে। তার ওপর আসন্ন শবেবরাতকে কেন্দ্র করে তিন দিনের ছুটি থাকায় যানবাহন ও যাত্রীর বাড়তি চাপ তৈরি হয়েছে। এমন অবস্থায় পাটুরিয়া ঘাটে পারের অপেক্ষায় যানবাহনের সারি দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম অবস্থা ঘাট কর্তৃপক্ষের।

গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে পাটুরিয়া ঘাট থেকে নবগ্রাম পর্যন্ত তিন কিলোমিটার এবং পাটুরিয়া সংযোগ মোড় থেকে আরিচা সদর উদ্দিন কলেজ পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এতে চার শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাকসহ সাড়ে পাঁচ শতাধিক যানবাহন পারের অপেক্ষায় ছিল দুপুর পর্যন্ত। এর সমান্তরালে বৈশাখের প্রচণ্ড গরমে চরম দুর্ভোগে নাকাল অবস্থা হচ্ছে ফেরি পারের অপেক্ষায় থাকা যাত্রী ও চালকদের। মালবাহী অনেক ট্রাকের চালক গত বৃহস্পতিবার থেকে সিরিয়ালের অপেক্ষায় বসে আছে।

বিআইডাব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের এজিএম নাসির মোহাম্মদ চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, শুক্রবারসহ সামনে শবেবরাত উপলক্ষে তিন দিন বন্ধ পাওয়ায় অনেকে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছে। এ কারণে ঘাটে যানবাহনের বাড়তি চাপ পড়েছে। এ অবস্থায় পাটুরিয়া ঘাটে বাস-ট্রাক মিলে সাড়ে পাঁচ শতাধিক যানবাহন পারের অপেক্ষায় আছে। এ নৌ রুটে ছোট-বড় ১৬টি ফেরির মধ্যে ১৫টি চলাচল করছে। বাকি একটি ফেরি শাহ মখদুম পাটুরিয়া ঘাটের ভাসমান কারখানায় সাময়িক মেরামতে রয়েছে।

ঢাকা থেকে যশোরগামী শিশুখাদ্যবোঝাই ট্রাকের চালক রুবেল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে পাটুরিয়া ঘাটে পারের অপেক্ষায় বসে আছি। এখনো পার হতে পারছি না। কখন যেতে পারব বলতে পারছি না।’ কুষ্টিয়াগামী বাবেয়া পরিবহনের যাত্রী আহম্মদ আলী গরমে হাঁসফাঁস অবস্থায় রয়েছেন স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে। তিনি বললেন, ‘ঘাটে এসে তিন ঘণ্টা বসে আছি। প্রচণ্ড গরমে ছেলে-মেয়েকে নিয়ে অসহনীয় মুহূর্ত পার করছি। আল্লাহই জানে কখন ফেরিতে উঠব!’

মন্তব্য