kalerkantho

রবিবার । ২০ অক্টোবর ২০১৯। ৪ কাতির্ক ১৪২৬। ২০ সফর ১৪৪১                

উপজেলা নির্বাচন তৃতীয় ধাপ

ভোটের হার ৪১.৪১ শতাংশ

বিশেষ প্রতিনিধি   

২৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে চেয়ারম্যান পদে ভোট পড়েছে ৪১.৪১ শতাংশ। তবে যেসব উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ভোট হয়নি; কিন্তু অন্য দুটি পদে ভোট হয়েছে, সেসব উপজেলার ভোটের হারের তথ্য গতকাল নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ে পাওয়া যায়নি। কমিশন সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, চেয়ারম্যান ছাড়াও অন্যান্য পদের ভোটের হিসাব পাওয়া গেলে সার্বিক ভোট দেওয়ার হার আরো কম হবে। এর আগে প্রথম ধাপে ভোট পড়েছিল ৪৩.৩২ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ধাপে ভোট পড়ে ৪১.২৫ শতাংশ। সে হিসাবে দ্বিতীয় ধাপের চেয়ে সামান্য বেশি ভোট পড়েছে তৃতীয় ধাপে। নির্বাচন কমিশন সচিবালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

ইসি সচিবালয়ের তথ্যানুসারে ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদের চতুর্থ সাধারণ নির্বাচনের তুলনায় এবার অনেক কম ভোট পড়েছে। সে সময় ছয় ধাপে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং তখন প্রথম ধাপে ৬২.৪৪ শতাংশ, দ্বিতীয় ধাপে ৬৩.৩১ শতাংশ, তৃতীয় ধাপে ৬৩.৫২ শতাংশ, চতুর্থ ধাপে ৫৬.১২ শতাংশ, পঞ্চম ধাপে ৬০.৮৯ শতাংশ এবং ষষ্ঠ ধাপে ৫৯.৪৭ শতাংশ ভোট পড়েছিল। আর ১০ বছর আগে ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারি এক দিনে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদের তৃতীয় সাধারণ নির্বাচনে ভোট পড়ে ৬৮.৩২ শতাংশ। বিগত দুটি উপজেলা পরিষদের তুলনায় এবার ভোট কম পড়ার কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, সরকারবিরোধী বেশির ভাগ রাজনৈতিক দল এবারের উপজেলা নির্বাচন বর্জন করেছে। এই বর্জনের কারণে বেশির ভাগ উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা।

ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদী, লক্ষ্মীপুর, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার জেলার উপজেলাগুলোতে ভোটের হার তুলনামূলক কম। তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে মোট ভোটার ছিল এক কোটি ৮২ লাখ এক হাজার ৭৭০ জন। তৃতীয় ধাপে সবচেয়ে বেশি ভোট পড়েছে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলায়, ৭২.৯১ শতাংশ। এই উপজেলায় মোট ভোটার ছিল ৭৫ হাজার চারজন। ভোট দিয়েছে ৫৪ হাজার ৬৮৬ জন। আর সবচেয়ে কম ভোট পড়েছে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলায়, ১৯.২৬ শতাংশ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা