kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

রংপুর মেডিক্যালে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতি

রংপুর অফিস   

১৩ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রোগীর স্বজনের কাছে শারীরিক লাঞ্ছনাসহ ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কক্ষের আসবাবপত্র তছনছ করার অভিযোগে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি শুরু করেছে ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদ। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে হাসপাতাল পরিচালকের কার্যালয় ঘেরাও করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পুলিশ বক্স স্থাপনসহ পাঁচদফা দাবিসংবলিত স্মারকলিপি দিয়েছেন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা।

ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদ জানায়, গতকাল ভোররাতে হৃদরোগ বিভাগে রহিমা খাতুন (৯৫) নামে এক বৃদ্ধা ভর্তি হন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৬টা ৫ মিনিটে তিনি মারা যান। এ সময় রোগীর স্বজনরা চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ এনে সিনিয়র স্টাফ নার্স, ইন্টার্ন চিকিৎসক ও ঊর্ধ্বতন চিকিৎসকের সঙ্গে বাগিবতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। সেই সঙ্গে ইন্টার্ন চিকিৎসক হালিমা ও আলেয়াকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে বলে অভিযোগ করেন তাঁরা। এ ঘটনার পর ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। তাঁরা ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে হাসপাতাল পরিচালকের কার্যালয় ঘেরাও করে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হাসপাতালে স্থায়ী পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন, দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ, জরুরি বিভাগে নিরাপত্তা বাড়ানো, হোস্টেলে নিরাপত্তা ও চিকিৎসাবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির দাবিতে স্মারকলিপি দেন এবং দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি পালনের ঘোষণা  দেন।

পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডা. আবরাবার লাবিব জিসান বলেন, ‘হৃদরোগ বিভাগে রোগীর স্বজন ও কিছু বহিরাগত ইন্টার্ন চিকিৎসকদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে। আমাদের রুম তছনছ করে ফেলা হয়েছে। আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।’

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পরিচালক ডা. অজয় রায় বলেন, ‘আমি ইন্টার্ন চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁদের দাবি যৌক্তিক।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা