kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

মহাহিসাব নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়

দুর্নীতি প্রতিরোধে ২১ সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মহাহিসাব নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে ৩৩টি দুর্নীতির উৎসব চিহ্নিত করার পাশাপাশি দুর্নীতি প্রতিরোধে ২১টি সুপারিশ করা হয়েছে।

সুপারিশগুলো হলো : হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কার্যালয় (সিজিএ) থেকে মাঠ পর্যায়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষায় ভিডিও কনফারেন্স প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে। বিশেষ করে সুপারভিশন ও মনিটরিং জোরদার করতে হবে। সেবা প্রার্থীদের দ্রুত সেবা পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয়সংখ্যক জনবল বাড়ানো এবং একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ আইটি সেটআপ অর্থাৎ আইটি সেক্টরকে শক্তিশালী করতে হবে। আর আইটি সিস্টেমকে সাপোর্ট দেওয়ার জন্য প্রতিটি হিসাবরক্ষণ অফিসে একজন আইটি বিশেষজ্ঞ পদায়ন করা যেতে পারে।

ই-ফিলিং কার্যক্রম গ্রহণ অর্থাৎ সমগ্র অফিস অটোমেশনের আওতায় নিয়ে আসার পদক্ষেপ নিতে হবে। সব ধরনের বিল ডিজিটালি নিষ্পত্তির ব্যবস্থা করা এবং কয়েকটি ক্ষেত্রে (প্রভিডেন্ট ফান্ড তথা জিপিএফ অগ্রিম গ্রহণ) এক দিনেই সেবা দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। 

পেপারলেস সাইবার আর্কাইভের ব্যবস্থা করা, প্রতিটি হিসাবরক্ষণ অফিসের জন্য ওয়েবসাইট থাকা এবং ওয়েবসাইটে অভিযোগ পেজ যুক্ত করা যেতে পারে। অভিযোগ ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি সহজ করা এবং ভুক্তভোগীদের অভিযোগ দাখিল, শুনানি ও নিষ্পত্তির ব্যবস্থা থাকার কথা বলা হয়েছে। দাপ্তরিক কাজে গতিশীলতা ও স্বচ্ছতা আনতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতি তিন বছর অন্তর বদলির বিষয়টি দৃঢ়ভাবে অনুসরণ করা; পেনশনসংক্রান্ত কার্যক্রমকে স্বচ্ছ, দ্রুত এবং ভোগান্তিমুক্ত করার লক্ষ্যে পেনশন কেস ১০ দিনের জায়গায় পাঁচ থেকে সাত দিনে নামিয়ে আনা, পেনশনারদের পেনশন পাওয়ার ক্ষেত্রে ইলেকট্রনিক পন্থায় অর্থ স্থানান্তর (ঊঋঞ) ব্যবস্থা চালু করা ও পেনশন সহজীকরণ বিধিমালা বাধ্যতামূলকভাবে অনুসরণ করা।

উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় মাঠ পর্যায়ের অফিসগুলো নিয়মিত পরিদর্শনের মাধ্যমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করা, বেতন-ভাতাসহ সব ধরনের বিল পরিশোধের বেলায় দায়িত্বে অবহেলা ও বিলম্বের জন্য দায়ী কর্মকর্তা-কর্মচারীর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে।

প্রধান হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার কার্যালয়সহ সব বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা কার্যালয় কর্তৃক সরকারি পরিষেবা প্রদানের ক্ষেত্রে সংঘটিত অনিয়ম, দায়িত্ব অবহেলা ও দুর্নীতি মনিটরিংয়ের জন্য হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে একটি ‘হটলাইন’ স্থাপন এবং এর মাধ্যমে প্রাপ্ত অভিযোগ নিয়মিত পর্যালোচনা করে যথাযথ ও দৃঢ় ব্যবস্থা গ্রহণ করা; হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা, অডিটর পর্যায়ে সিদ্ধান্ত প্রদানের ক্ষেত্রে স্থানীয় কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ না দেওয়া এবং কোনো এক স্টেশনে দীর্ঘকাল অবস্থান পরিহারের জন্য কর্মকর্তা পর্যায়ে সরকারি নিয়ম অনুযায়ী নিয়মিত বদলি নিশ্চিত করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

কাজের গতিশীলতা ও স্বচ্ছতার লক্ষ্যে iBAS + + এ বরাদ্দ হিসাবরক্ষণ অফিসে পাঠানোর পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে অনুলিপি অনলাইনে প্রেরণ করার ব্যবস্থা করা; আর iBAS + + সম্পর্কে হিসাবরক্ষণ কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের অদক্ষতা ও অস্পষ্টতা দূর করতে যথাযথ প্রশিক্ষণ দেওয়ার কথা বলা হলেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা