kalerkantho

অভিযুক্ত ছয়জন আটক

পুটখালীতে দুই তরুণী দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার

দুই তরুণী পুটখালী সীমান্তে দালালদের খপ্পরে পড়েন

বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি   

১১ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যশোরের বেনাপোল সীমান্তের পুটখালীতে দুই তরুণীকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রবিবার সন্ধ্যার দিকে পুলিশ অভিযুক্ত ছয়জনকে আটক করেছে। উদ্ধার করেছে ওই দুই তরুণীকে।

তরুণীদের একজনের বাড়ি কুষ্টিয়ায় এবং অন্যজনের বাড়ি চাঁদপুরে।

পুলিশ বলছে, ধর্ষণের শিকার দুই তরুণী বর্তমানে পুলিশের হেফাজতে আছেন। তাঁরা যে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন তাঁদের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে। আজ সোমবার তাঁদের যশোর আদালতে পাঠানো হবে।

ধর্ষণের অভিযোগে আটক ছয়জন হলো পুটখালী গ্রামের শাহ আলমের ছেলে সোহেল (৩০), আজগরের ছেলে আরিফ (২৯), আব্দুল খালেকের ছেলে আব্দুল্লাহ (২৭), মোর্শেদের ছেলে শিমুল (৩৫), আয়ুব বিশ্বাসের ছেলে প্লাবন (২৮), সামছুর ছেলে মোরশেদ (৩৫)। এ ছাড়া রাফিউল (৩২) নামের আরেক অভিযুক্ত পলাতক থাকায় তার বাবা সাদেককে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় লোকজন জানায়, ভারতে আত্মীয়-স্বজনের বাড়ি বেড়াতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ওই দুই তরুণী শনিবার সকালে পুটখালী সীমান্তে এসে দালালদের খপ্পরে পড়েন। পরদিন ভারতে পাঠানোর কথা বলে রাতে তাঁদের শাহ আলম বিশ্বাসের বাড়িতে রাখা হয়। কিন্তু গভীর রাতে তাঁদের একটি পুকুরপারে নিয়ে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে সাতজন। বিষয়টি এলাকাবাসী জানতে পেরে পুলিশকে জানায়। পরে পুলিশ ও এলাকাবাসী সারা দিন অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তদের মধ্যে ছয়জনকে সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে আটক করে।

বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি শেখ আবু সালে মাসুদ করিম কালের কণ্ঠকে বলেন, অবৈধ পথে ভারত যাওয়ার উদ্দেশ্যে আসা দুই তরুণীকে পুটখালী গ্রামের সাতজন সারা রাত ধর্ষণ করেছে। খবর পেয়ে তিনি গ্রামবাসীর সহযোগিতায় মীমাংসা করার কথা বলে অভিযুক্তদের পুটখালীর একটি বাড়িতে হাজির করান এবং আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। তাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে।

মন্তব্য