kalerkantho

বুধবার। ১৯ জুন ২০১৯। ৫ আষাঢ় ১৪২৬। ১৫ শাওয়াল ১৪৪০

বুড়িগঙ্গা ও তুরাগতীরে অভিযান

বহুতল ভবনসহ আরো ৫৬ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানীর কোল ঘেঁষে প্রবাহিত বুড়িগঙ্গা ও তুরাগতীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত রয়েছে। নদীর নাব্যতা ফেরাতে ও দখলমুক্ত করতে গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডাব্লিউটিএ) পঞ্চম দফায় তৃতীয় দিনের মতো অভিযান চালায়।

এ অভিযানে বুড়িগঙ্গা ও তুরাগতীরের প্রায় দুই একর জায়গা দখলমুক্ত করা হয়। এ সময় বহুতল ভবনসহ ৫৬টি ছোট-বড় স্থাপনা ভাঙা হয়। একই দিন ‘আমিন মোমিন’ হাউজিংয়ের দখলকৃত জায়গার মাটি অপসারণ কাজও হয়, যা শুরু হয়েছিল বুধবার।

অভিযানে তিনতলা পাঁচটি পাকা ভবন, ছয়টি দোতলা ভবন, ১০টি একতলা ভবন, সাতটি আধাপাকা ভবন, ছয়টি টং দোকান ও ২৬টি সীমানা দেয়াল উচ্ছেদ করা হয়।

সকাল সাড়ে ৯টায় বসিলা ব্রিজের নিচে বিআইডাব্লিটিএর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে কেরানীগঞ্জ অংশের ওয়াশপুর এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়। দুটি বুলডোজার দিয়ে প্রায় ২৫টি স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। অভিযান শুরুর দেড় ঘণ্টা পর কয়েকজন এসে নিজেদের জায়গার প্রকৃত মালিক দাবি করে কাগজ দেখাতে চায়। কিন্তু সঠিক দলিলসহ অন্যান্য কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হলে মাইকিং করে তাদের চলে যেতে বলা হয়। কেউ কেউ ভুয়া দলিল নিয়ে আসায় পরে দৌড়ে পালিয়ে যায়।

বিষয়টি নিয়ে বিআইডাব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফ উদ্দিন বলেন, যেসব দলিল তারা নিয়ে এসেছে এর বেশির ভাগই ‘নাল জমি’ (নদীর জমি) উল্লেখ করা রয়েছে। নদী আইন অনুযায়ী নাল জমিতে ভরাট বা স্থাপনা নির্মাণ করা যাবে না।

মন্তব্য