kalerkantho

শনিবার । ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৬ রবিউস সানি               

চলতি সংসদে সর্বোচ্চ নারী প্রতিনিধি

নিখিল ভদ্র   

৮ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জাতীয় সংসদের ইতিহাসে এবারই সর্বোচ্চসংখ্যক নারী প্রতিনিধিত্ব করছেন। সংরক্ষিত নারী আসনের পাশাপাশি এবার ২৩ জন নারী সরাসরি নির্বাচিত হয়েছেন। আর সংসদ নেতা ও স্পিকার—এ দুই পদে টানা তৃতীয়বার নির্বাচিত হয়েছেন নারীরা। তবে আইন প্রণয়নসহ সংসদীয় কার্যক্রমে বিগত সময়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকলেও এখনো নানাভাবে উপেক্ষিত সংরক্ষিত নারী আসনের এমপিরা।

সংসদ লাইব্রেরির তথ্যানুযায়ী, স্বাধীনতার পর প্রথম সংসদে সরাসরি কোনো নারী নির্বাচিত হননি। অবশ্য তখন কোনো দল কাউকে মনোনয়ন দেয়নি। ১৯৭৯ সালে গঠিত দ্বিতীয় সংসদে উপনির্বাচনে খুলনা-১৪ আসন থেকে সৈয়দা রাজিয়া ফয়েজ ও টাঙ্গাইল-১ আসন থেকে আশিফা আকবর সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৮৬ সালে গঠিত তৃতীয় সংসদে পাঁচজন, ১৯৮৮ সালে চতুর্থ সংসদে চারজন, ১৯৯১ সালে গঠিত পঞ্চম সংসদে ছয়জন, ২০০৮ সালে ষষ্ঠ সংসদে তিনজন, ১৯৯৬ সালে গঠিত সপ্তম সংসদে আটজন, ২০০১ সালে অষ্টম সংসদে সাতজন, ২০০৮ সালে গঠিত নবম সংসদে ২১ জন, ২০১৪ সালে গঠিত দশম সংসদে ২২ জন এবং সর্বশেষ একাদশ সংসদে ২৩ জন নারী সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হন।

একাদশ সংসদে সরাসরি নির্বাচিত সদস্যরা হলেন আওয়ামী লীগ দলীয় সদস্য সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (গোপালগঞ্জ-৩), স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী (রংপুর-৬), সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী (ফরিদপুর-২), সাবেক শিক্ষামন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী (শেরপুর-২), শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি (চাঁদপুর-৩), সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন (ঢাকা-১৮), সংসদের হুইপ মাহবুব আরা গিনি (গাইবান্ধা-২), পরিবেশ উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার (বাগেরহাট-৩), শ্রম প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান (খুলনা-৩), সাবেক জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক (যশোর-৬), সাবেক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি (গাজীপুর-৫), সংগীতশিল্পী মমতাজ বেগম (মানিকগঞ্জ-২), রেবেকা মোমিন (নেত্রকোনা-৪), আয়েশা ফেরদাউস (নোয়াখালী-৬), জয়া সেনগুপ্তা (সুনামগঞ্জ-২), সিমিন হোসেন রিমি (গাজীপুর-৪), সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি (মুন্সীগঞ্জ-২), সেলিমা আহমাদ (কুমিল্লা-২) ও শাহিনা আক্তার (কক্সবাজার-৪); প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি থেকে বেগম রওশন এরশাদ (ময়মনসিংহ-৪) ও নাসরিন জাহান রতনা (বরিশাল-৬) এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল—জাসদ (ইনু) সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার (ফেনী-১)। এ ছাড়া প্রতিটি সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনের প্রতিনিধিরা ছিলেন। বর্তমান সংসদে সংবিধান নির্ধারিত ৫০টি আসনের মধ্যে ৪৯টি আসনে এরই মধ্যে নির্বাচন হয়েছে। বিএনপি থেকে নির্বাচিত সদস্যরা শপথ না নেওয়ায় বর্তমানে একটি আসন শূন্য রয়েছে। ১৯৭৩ সালে প্রথম সংসদে সংরক্ষিত আসনে নারী সদস্য ছিলেন ১৫ জন, যা পর্যায়ক্রমে বাড়িয়ে ৫০টি করা হয়েছে।

সংসদীয় কার্যবিবরণী পর্যালোচনা করে সংসদে সাধারণ (সরাসরি ভোটে নির্বাচিত) ও  সংরক্ষিত নারী আসনের এমপিদের সক্রিয় ও সরব উপস্থিতির কথা মিলেছে। তাঁরা দেশে-বিদেশে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। টানা তিনবার নির্বাচিত বর্তমান স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি অ্যাসোসিয়েশন (সিপিএ) চেয়ারপারসনের দায়িত্ব পালন করেছেন। সরকারি দলের পাশাপাশি বিরোধী দলের নারী এমপিরা আইন প্রণয়নসহ সব কার্যক্রমে সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন। এমনকি বেশির ভাগ সময় তাঁদের দিয়েই সংসদ অধিবেশনের কোরাম পূর্ণ করতে হয়েছে। তবে আইনগতভাবে সমান হলেও সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্যরা সংসদের বাইরে নানা ধরনের অসহযোগিতা ও অবহেলার শিকার হন বলে অভিযোগ আছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা