kalerkantho

শুক্রবার । ২২ নভেম্বর ২০১৯। ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

চকবাজার ট্র্যাজেডি

নিখোঁজ ফাতেমার অপেক্ষায় স্বজনরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নিখোঁজ ফাতেমার অপেক্ষায় স্বজনরা

চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডের সময় শিল্পকলা একাডেমি থেকে লালবাগের পোস্তগোলার বাসায় ফেরার পথে নিখোঁজ হন ফাতেমা তুজ জোহরা। স্বজনদের শঙ্কা চকবাজার ট্র্যাজেডির শিকার তিনি। ছবি : কালের কণ্ঠ

গত বুধবার শিল্পকলা একাডেমিতে একটি কবিতা আবৃত্তির অনুষ্ঠান শেষে লালবাগের পোস্তগোলায় নিজের বাসায় ফিরছিলেন ফাতেমা তুজ জোহরা। কিন্তু দুই দিন পরও বাসায় ফেরেননি তিনি। ফাতেমার ফেরার অপেক্ষায় আছে স্বজনরা। তবে তাদের আশঙ্কা, চকবাজারের চুড়িহাট্টার অগ্নিকাণ্ডে ফাতেমা নিহত হয়ে থাকতে পারেন।

ফাতেমার বড় ভাই সাইদুল ইসলাম গতকাল শুক্রবার সকালে চুড়িহাট্টা মোড়ে নিখোঁজের তালিকায় তাঁর বোনের নাম লেখান। সেখানে তিনি বলেন, ‘বুধবার রাত সোয়া ১০টায় আমার বোনের (ফাতেমা) সর্বশেষ লোকেশন ছিল পুরান ঢাকার বেগম বাজারে (চুড়িহাট্টার কাছে)। এটা আমরা ডিবি পুলিশের মাধ্যমে বোনের মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করে পেয়েছি। এর অর্থ সে এই রাস্তা (চুড়িহাট্টা) দিয়েই আসছিল।’

সাইদুল জানান, ফাতেমা তুজ জোহরা (২১) গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, ‘বুধবার রাত ১০টা ৪ মিনিটে বাসা থেকে বোনকে ফোন দেওয়া হয়। সে জানায়, কিছুক্ষণের মধ্যেই বাড়ি ফিরবে। এর কিছুক্ষণ পরই আমরা অগ্নিকাণ্ডের খবর জানতে পারি। ফাতেমাকে আর পাওয়া যায়নি।’

সাইদুল আরো বলেন, ‘আমরা লালবাগ থানায় একটি জিডি করেছি। ডিবি ও র‌্যাবের কাছে গেছি। ডিবির একটি টিম ফোন ট্র্যাকিং করে জানতে পারে, ১০টা ১৬ মিনিটে ফাতেমার ফোনের লোকেশন ছিল বেগম বাজারে। এটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থল থেকে ১০০ মিটার দূরে। আমরা রাত থেকেই বিভিন্ন হাসপাতালে গিয়েছি। যেখানে আহতদের নেওয়া হয়েছে—সব জায়গায়ই গেছি। অনেকবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে গিয়েছি। কিন্তু কোথায়ও তাঁকে পাচ্ছি না।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা