kalerkantho

শুক্রবার । ২২ নভেম্বর ২০১৯। ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

গুরুত্বের কারণে বাংলা শিখছে বিদেশিরা

মেহেদী হাসান   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলাদেশ ও এই অঞ্চলের ক্রমবর্ধমান গুরুত্বে বাংলা ভাষা শেখার প্রতি আগ্রহী হচ্ছে বিদেশিরা। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর আমেরিকানদের তাৎপর্যপূর্ণ যে ১৩টি বিদেশি ভাষা শেখার জন্য বৃত্তি দেয় তার অন্যতম বাংলা। বাংলাদেশের সঙ্গে দূতিয়ালি, অন্যান্য পেশা ও ব্যবসা-বাণিজ্যের কারণেও বাংলায় কথা বলা শিখছে বিদেশিরা।

জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের অর্থায়নে পরিচালিত ‘ক্রিটিক্যাল ল্যাঙ্গুয়েজ স্কলারশিপ (সিএলএস)’ কর্মসূচিকে সাজানো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিকে গুরুত্ব দিয়ে। একুশ শতকের বৈশ্বিক জনশক্তি হিসেবে গড়ে তুলতে তারা বাংলা, আরবি, হিন্দি, চীনা, রুশ, ফারসিসহ ১৩টি ভাষাকে চিহ্নিত করেছে।

সিএলএস আমেরিকান শিক্ষার্থীদের কাছে বাংলা ভাষার গুরুত্ব তুলে ধরতে গিয়ে বলেছে, ঘনবসতিপূর্ণ রাষ্ট্র বাংলাদেশ থেকে শুরু করে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের কোলাহলপূর্ণ রাস্তায় লোকজন বাংলা ভাষায় কথা বলে। এটি সারা বিশ্বে সবচেয়ে প্রচলিত ভাষাগুলোর মধ্যে সপ্তম।

সিএলএস বলেছে, ‘দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনীতি ক্রমেই বিকশিত হচ্ছে এবং এই অঞ্চলের কৌশলগত ও বাণিজ্যিক গুরুত্ব বাড়ছে। এমন প্রেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক ব্যবসা, বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণাপ্রতিষ্ঠানে, অলাভজনক ও উন্নয়ন সংস্থাগুলোতে এবং যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কাছে বাংলার মতো ভাষার গুরুত্ব বেড়েই চলেছে।’

সিএলএসের বাংলা কর্মসূচির হয়ে ২০১৩ ও ২০১৪ সালে বাংলাদেশে বাংলা শিখেছেন যুক্তরাষ্ট্রের এলিজাবেথ (লিজ) থমাস। যুক্তরাষ্ট্রের জন হপকিন্স ব্লুমবার্গ স্কুল অব পাবলিক হেলথের ওই গবেষক বাংলা শেখার কারণ হিসেবে বলেছেন, মাঠপর্যায়ে গবেষণার জন্য বাংলাদেশে আসার আগ্রহের কথা মাথায় নিয়েই তিনি মাস্টার্স প্রগ্রাম শুরু করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘আমি বাংলাদেশে অন্তত ছয় মাস থাকার পরিকল্পনা করেছিলাম। আর আমার প্রস্তাবিত গবেষণার মাধ্যমে স্থানীয় ভাষার প্রয়োজন ছিল।’

ঢাকায় পশ্চিমা কয়েকজন কূটনীতিকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ দেশে আসার আগে দৈনন্দিন ব্যবহার করা হয় এমন কিছু বাংলা শব্দ বা সম্ভাষণ সম্পর্কে তাঁরা ধারণা নিয়ে আসেন। অনেকে আবার এ দেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বাংলা ভাষা শিখেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বাংলা ভাষা শেখার সুযোগ রয়েছে বিদেশিদের।

আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক রূপা চক্রবর্তী বলেন, ‘রাশিয়া, আমেরিকা, কানাডা, নিউজিল্যান্ড, রুমানিয়া, নেদারল্যান্ডস, জাপান, চীন, কোরিয়াসহ নানা দেশের মানুষ এখানে তাদের নিজেদের প্রয়োজনেই বাংলা শিখছে। তারা তাদের পেশায় এটি কাজে লাগায়।’

বেসরকারি ইনডিপেনডেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ ইনস্টিটিউটেও বিদেশিরা বাংলা শিখছে। এ ছাড়া বিদেশিদের বাংলা শেখানোর আরো কিছু প্রতিষ্ঠানও আছে বাংলাদেশে।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক স্টুডেন্ট ট্রাভেল প্ল্যানিং গাইড ম্যাগাজিনে বিদেশি ভাষার চাহিদা ও দক্ষতা বিষয়ক এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বের লোকজন সাত হাজারের বেশি ভাষায় কথা বললেও সবচেয়ে প্রচলিত হলো চীনা মান্দারিন, ইংরেজি, স্প্যানিশ, হিন্দি, আরবি, বাংলা, রুশ, পর্তুগিজ, জাপানিজ, জার্মান ও ফ্রেঞ্চ। বিদেশি ভাষা হিসেবে সুনির্দিষ্টভাবে ওই ভাষাগুলোর চাহিদা একেকজনের কাছে একেক রকম।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা