kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

চট্টগ্রামে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামের উন্নয়নকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, দেশে উন্নয়নের যে ধারা সূচিত হয়েছে, তা চলমান রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবিরাম পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। বড় বড় প্রকল্প নিয়ে দেশে উন্নয়ন করছেন। ক্লান্তি কাকে বলে তা প্রধানমন্ত্রীর ডিকশনারিতে নেই। উন্নয়নের এই ধারা অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনাকে সহযোগিতা করুন। তাঁর নেতৃত্বের বিকল্প নেই। গতকাল শনিবার দুপুরে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) সম্মেলন কক্ষে এক মতবিনিময়সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী এ সময় আরো জানান, প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামের উন্নয়নকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছেন।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণের পর গতকালই প্রথম চট্টগ্রামে আসেন শ ম রেজাউল করিম। সিডিএর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে মতবিনিময়সভার আগে তিনি নগরের কয়েকটি মেগা প্রকল্প পরিদর্শন করেন।

সিডিএকে উন্নয়নকাজের গতি বাড়ানোর তাগিদ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘সিডিএর উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে আমার ধারণা আছে। কাজের গতি আরো বাড়াতে হবে। প্রকল্পের ধীরগতি মেনে নেওয়া যাবে না। কোনো অজুহাতে উন্নয়ন প্রকল্প থেমে থাকবে, জনগণ ভোগান্তির শিকার হবে এবং আর এর দায়ভার শেখ হাসিনার সরকারের কাঁধে যাবে, সেটি কোনোভাবেই কাম্য নয়। আন্তরিকতা, সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে।’

মন্ত্রী জানান, কাজের গতি বাড়াতে গিয়ে যদি কোনো প্রতিকূলতা থাকে, তবে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছেন জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, রাজধানী ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামে বেশি বরাদ্দ আসে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, ঢাকার চেয়েও উন্নয়ন প্রকল্পে বেশি ফান্ড চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ দিয়েছেন। এতেই বোঝা যায় প্রধানমন্ত্রীর চট্টগ্রামের প্রতি ভালোবাসা কত। শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘দায়িত্ব গ্রহণ করে সরকারি সফরে আজকে প্রথম চট্টগ্রামে এসে চট্টগ্রামের উন্নয়ন দেখে খুশি হয়েছি।’

সভায় সিডিএর চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম চট্টগ্রাম নগরের জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের তথ্য সভায় তুলে ধরেন। সভায় আরো বক্তব্য দেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব শহীদ উল্লা খন্দকার, সিডিএর বোর্ড সদস্য কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব, জসীম উদ্দিন শাহ ও আশিক ইমরান। সভায় আওয়ামী লীগের উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, সিডিএর বিভিন্ন পর্যায়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আবদুচ ছালাম বলেন, ‘চট্টগ্রামকে বাণিজ্যিক রাজধানী করার জন্য মহাপরিকল্পনা করেছি। প্রধানমন্ত্রী সব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছেন। চট্টগ্রামে ৫৭টি খাল রয়েছে। এর মধ্যে ৩৬টি খাল খননের পরিকল্পনা করেছি। বর্তমানে ১১টি খালের কাজ চলছে। ধীরে ধীরে সব খাল খনন করা হবে।’

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব বলেন, ‘বরাদ্দের দিক দিয়ে চট্টগ্রাম এক নম্বরে। আমাদের প্রত্যাশা, গুণগত মান বজায় রেখে আপনারা কাজ করবেন। চট্টগ্রাম থেকে যখনই কোনো উন্নয়ন প্রকল্প একনেকে যায় তখনই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ওই প্রকল্পের দ্রুত অনুমোদন দেন। চট্টগ্রামের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী সব সময় আন্তরিক।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা