kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সকালের স্বাস্থ্যকর পানীয়

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সকালের স্বাস্থ্যকর পানীয়

এ কথা হাজারোবার শুনেছেন যে ঘুম থেকে ওঠার পর এক-দুই গ্লাস পানি খেতে হবে। সকাল সকাল তরল খেয়ে দেহকে পরবর্তী ৭-৮ ঘণ্টার জন্য ডিহাইড্রেটেড রাখতে হয়। তবে কেবল বিশুদ্ধ খাবার পানিই নয়, আরো কয়েক ধরনের পানীয় আছে যেগুলোর ওপর নিশ্চিন্তে ভরসা রাখতে পারেন। এ নিয়েই আজকের টিপস—

 

লেবুর পানি

এ তালিকার শীর্ষ পানীয় হতে পারে লেবুর পানি। একেবারে সাদামাটা পদ্ধতিতে বানানো যায়। লেবু হরহামেশাই মেলে। ভিটামিন ‘সি’-এ পূর্ণ ফলটি দারুণ উপকারী। স্বাস্থ্যগুণে ভরপুর। পুষ্টিগুণ তো দেবেই, সেই সঙ্গে দেহের পানির চাহিদাও পূরণ হবে।

 

ডাবের পানি

কচি ডাব বা নারিকেলের পানির গুণের কথা সবাই জানেন। দেহের বিপাকক্রিয়া সুষ্ঠু করে ডাবের পানি। যাদের হজমে সমস্যা তারা পাবেন মুক্তি। সকালে ঘুম থেকে উঠে একটা ডাবের পানি খেলে গোটা দিন সুস্থ থাকবেন। দেহের অন্য অনেকগুলো অসুবিধা সেরে যাবে এ পানিতে।

 

সবজির জুস

বানানো খুব সহজ। শাকসবজি সিদ্ধ করে সহজেই ব্লেন্ড করে জুস বানিয়ে ফেলতে পারেন। আবার গাজর, শসা বা শাকপাতা এমনিতেই খাওয়া যায়। বিটরুট বা এ ধরনের সবজিও কিন্তু কাঁচা খাওয়া যায়। নিমিষেই দেহে শক্তি দেবে। মিলবে নানাবিধ উপকারিতা।

 

আদার পানি

যদি শরীরে ম্যাজম্যাজে ভাব থাকে কিংবা মাথা ঝিমঝিম করে, তবে আদার রস মেশানো পানি কিংবা চায়ের তুলনাই নেই। চাঙ্গা করবে মুহূর্তেই। বানানো খুবই সহজ। এক গ্লাস হালকা উষ্ণ পানি নিন। এতে আদা ছেঁচে বা কুচি করে দিন। চাইলে আদা চা-ও উপভোগ করতে পারেন।

 

কমলার জুস

লেবুর পানির মতোই একটা পানীয়। ভিটামিন ‘সি’-এ ভরপুর। সকালে চাইলেই আপনি এক গ্লাস করে কমলার জুস পান করতে পারেন। দেখবেন গোটা দিন ঝরঝরে লাগছে।

 

দুধ-কলার স্মুদি

নাশতার পর এ পানীয় যে কারো ভালো লাগবে। আগেই খেতে পারেন। এক গ্লাস গরম দুধ আর একটা বা দুইটা কলা ব্লেন্ড করুন। তৈরি হয়ে যাবে স্মুদি। খেয়ে নিন এবং সুস্থ-সবল থাকুন।

টাইমস অব ইন্ডিয়া অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা