kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সাইনবোর্ডে বাংলা না থাকায় জরিমানা ১০ প্রতিষ্ঠানকে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সাইনবোর্ডে বাংলা রাখার আইনি বাধ্যবাধকতা থাকলেও তা না মানায় ১০ প্রতিষ্ঠানকে অর্থদণ্ড দিতে হয়েছে। ভাষাসংগ্রামের স্মৃতিবিজড়িত ফেব্রুয়ারি মাসকে সামনে রেখে এই ব্যাপারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা শুরু করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। ভাষাপ্রেমীদের মতে, শুধু ফেব্রুয়ারি এলেই এমন অভিযান হয়। অন্য সময় এ ব্যাপারে কার্যকর উদ্যোগ না থাকায় আসল উদ্দেশ্য পূরণ হচ্ছে না।

ডিএনসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিদ আনোয়ারের নেতৃত্বে গতকাল সোমবার দুপুরে রাজধানীর বনানীতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। সাইনবোর্ড বাংলা ভাষায় না লেখা এবং অবৈধভাবে এলইডি ব্যবহারের অপরাধে বনানী-১১ নম্বর সড়কের ১০টি প্রতিষ্ঠানকে দুই লাখ ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে লিটল এঞ্জেলস, গ্রেট ইন্টারন্যাশনাল, বিএফসি, গিঞ্জা, ফিট এলিগেন্স, এঞ্জেলা, মুন্স, আনজারা, রিয়েল থাই ও লেদারেক্স। তা ছাড়া বিএফসি, রিয়েল থাই ও লেদারেক্সের সাইনবোর্ড তাত্ক্ষণিকভাবে অপসারণ করা হয়।

প্রসঙ্গত, হাইকোর্ট বিভাগের ১৬৯৬/২০১৪ নম্বর রিট পিটিশনে প্রদত্ত আদেশ অনুযায়ী সব প্রতিষ্ঠানের (দূতাবাস, বিদেশি সংস্থা ও সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্র ছাড়া) নামফলক, সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার ইত্যাদি বাংলায় লেখা বাধ্যতামূলক। স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে হাইকোর্টের আদেশটি ডিএনসিসি এলাকায় নিশ্চিত করার দায়িত্ব ডিএনসিসি কর্তৃপক্ষের।

ডিএনসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা এ এস এম মামুন জানান, আদালতের নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য ২০১৮ সালে জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে ডিএনসিসি এলাকার যেসব প্রতিষ্ঠানের নামফলক, সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার ইত্যাদি বাংলায় লেখা হয়নি, অবিলম্বে নিজ উদ্যোগে তা অপসারণ করে সাত দিনের মধ্যে বাংলায় লিখে প্রতিস্থাপনের অনুরোধ জানানো হয়। তা ছাড়া মাইকিং, বিভিন্ন গণমাধ্যমে পাঠানো প্রেস রিলিজসহ ডিএনসিসির ওয়েবসাইট এবং ফেসবুক পাতায়ও গণবিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশ করা হয়। হাইকোর্টের আদেশ এবং ডিএনসিসির গণবিজ্ঞপ্তি বাস্তবায়ন না করার অপরাধে প্রতিষ্ঠানগুলোকে জরিমানা করা হয়। ডিএনসিসির এই উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা