kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

জোড়া মাথার দুই শিশু

আলাদা হওয়ার আশা এখনো টিকে আছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হাঙ্গেরিতে পাঠানো বাংলাদেশের জোড়া মাথার দুই শিশু রাবেয়া-রুকাইয়ার আলাদা হয়ে নতুন জীবনে ফেরার আশা এখানো টিকে আছে। গতকাল সোমবার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা থাকলেও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা টেকট্রোগ্রাফির প্রতিবেদনের আলোকে সর্বশেষ তাদের দৃষ্টিশক্তির বিষয়টি নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার কথা জানিয়েছেন। বিশেষ করে রাবেয়া-রুকাইয়ার মাথার যে অংশ জোড়া লাগানো আছে তার ভেতরে দুজনের দৃষ্টিশক্তিকে প্রভাবিত করার মতো সংযুক্ত কিছু শিরা-উপশিরাকে বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। ফলে ওই বিশেষজ্ঞ দল আজ মঙ্গলবার এসব বিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করবে। যার মাধ্যমে দেখা হবে মাথা আলাদা করার সময় কাটা পড়া শিরা-উপশিরার কারণে তাদের দৃষ্টিহীনতার শঙ্কা কতটুকু আছে।

রাবেয়া-রুকাইয়ার সঙ্গে থাকা ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ সহকারী অধ্যাপক ও বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিশেষজ্ঞ ডা. হোসাইন ইমাম গতকাল সোমবার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আগের দিন জানা গিয়েছিল সোমবার টেকট্রোগ্রাফির প্রতিবেদন পাওয়া যাবে। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে এখনো টেকট্রোগ্রাফির প্রতিবেদন আমাদের দেওয়া হয়নি। এখানকার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সঙ্গে কাজ করার সময় তাঁরা আমাকে মৌখিকভাবে বিষয়গুলো জানিয়েছেন।’

ডা. হোসাইন ইমাম বলেন, দৃষ্টিশক্তির প্রভাবজনিত পরীক্ষা-নিরীক্ষার শেষ হলে ওই প্রতিবেদন আর টেকট্রোগ্রাফির প্রতিবেদনসহ অন্যান্য আরো কিছু বিষয় সমন্বয় করে চূড়ান্তভাবে সিদ্ধান্ত নিতে আরো দুই-তিন দিন সময় লাগতে পারে। এর পরই অপারেশনের দিনক্ষণ ঠিক হবে। যদিও দৃষ্টিশক্তির বিষয় ছাড়াও টেকট্রোগ্রাফির প্রতিবেদনে আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ দিক রয়েছে। তাই এই প্রতিবেদনের ওপরই নির্ভর করছে তাদের আগামী জীবন কেমন যাবে। যদি ওই প্রতিবেদন থেকে তাদের প্রাণে বাঁচিয়ে আলাদা করার উপযুক্ত নির্দেশনা পাওয়া যায় তবে পরবর্তী অপারেশনের দিনক্ষণ ঠিক হতে পারে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা