kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

এমপিদের শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিটের আদেশ আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নেওয়া শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে দাখিল করা রিট আবেদনের ওপর হাইকোর্টে শুনানি সম্পন্ন হয়েছে গতকাল বুধবার। আজ বৃহস্পতিবার আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছেন আদালত।

বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল এই দিন ধার্য করেন। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট তাহেরুল ইসলাম তৌহিদের পক্ষে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন মঙ্গলবার এমপিদের শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে এ রিট আবেদন দাখিল করেন। গতকাল রিট আবেদনকারীর পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ও ব্যারিস্টার সাকিব মাহবুব। তাঁদের সহযোগিতা করেন ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলাম, ব্যারিস্টার এ কে এম এহসানুর রহমান। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা। সঙ্গে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ, মোতাহার হোসেন সাজু, অমিত তালুকদার প্রমুখ। এ ছাড়া উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস এমপি।

নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নেওয়া শপথ বাতিল করে নতুন করে গেজেট প্রকাশের দাবি জানিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি), জাতীয় সংসদের স্পিকার ও মন্ত্রিপরিষদ সচিবের কাছে পাঠানো আইনি নোটিশের জবাব না পেয়ে এই রিট আবেদন করা হয়। অ্যাডভোকেট তাহেরুল ইসলাম তৌহিদের পক্ষে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন গত ৮ জানুয়ারি এ আইনি নোটিশ পাঠিয়েছিলেন। বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নোয়াখালী-১ আসন থেকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে পরাজিত হন। এ নির্বাচনে প্রচারণা চালাতে গিয়ে তিনি গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন।

গতকাল শুনানিতে ব্যারিস্টার খোকন ও সাকিব মাহবুব বলেন, সংবিধানের ৭২(৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দশম জাতীয় সংসদের মেয়াদ শেষ হবে ২৯ জানুয়ারি। অথচ দশম জাতীয় সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই একাদশ সংসদের নির্বাচিত সংসদ সদস্যরা শপথ নিয়েছেন। এটা সংবিধানের লঙ্ঘন। কারণ সংবিধানের ১২৩(৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দশম সংসদের মেয়াদোত্তীর্ণ হলেও এই (দশম) সংসদ সমাপ্তি না হওয়া পর্যন্ত সংসদ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। সে অনুযায়ী নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা ৩ জানুয়ারি শপথ নেওয়ায় সংবিধান লঙ্ঘিত হয়েছে। তাঁরা বলেন, সংবিধানের ১৪৮(৩) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘এই সংবিধানের অধীন যে ক্ষেত্রে কোন ব্যক্তির পক্ষে কার্যভার গ্রহণের পূর্বে শপথগ্রহণ আবশ্যক, সেই ক্ষেত্রে শপথ গ্রহণের অব্যবহিত পর তিনি কার্যভার গ্রহণ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।’ এ কারণে শপথের জন্য নির্বাচিতদের উচিত ছিল ১২৩(৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত অপেক্ষা করা। কিন্তু তা না করে তড়িঘড়ি করে শপথ নেওয়ায় সংবিধান লঙ্ঘন হয়েছে। তাই শপথ বাতিল পাশাপাশি নতুন করে গেজেট করতে হবে। তা ছাড়া রাষ্ট্রপতি দশম জাতীয় সংসদ ভেঙে দেননি। দশম সংসদ বহাল রেখেই নির্বাচন করা হয়েছে।

এ সময় আদালত তাঁদের কাছে জানতে চান, সংসদের মেয়াদ পাঁচ বছরই যে হতে হবে, এর কম হবে না—এ রকম কোনো আইন আছে কি না।

জবাবে ব্যারিস্টার খোকন বলেন, সংসদের মেয়াদ পাঁচ বছর হবে, এ জন্য আইন আছে। তবে কম হতে পারবে না—এমন কোনো আইন নেই।

এরপর রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, সংবিধানের ১০২ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী রিট আবেদনকারী সংক্ষুব্ধ কোনো ব্যক্তি নন। রিট আবেদনকারী কোনো প্রার্থীও ছিলেন না। তাই এ রিট আবেদন চলতে পারে না। এ ছাড়া রিট আবেদনে কোনো সংসদ সদস্যকে বিবাদী করা হয়নি। আইন অনুযায়ী ৩০০ সংসদ সদস্যকেই বিবাদী করতে হয়। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনের পর গেজেট প্রকাশিত হয়েছে। এমপিরা শপথ নিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদের সদস্যরা শপথ নিয়েছেন। এ অবস্থায় রিট চলতে পারে না। তাঁরা চাইলে ঘোষণামূলক মামলা করতে পারেন। তাই রিট আবেদন খারিজযোগ্য।

এরপর ব্যারিস্টার খোকন রাষ্ট্রপক্ষের বক্তব্যের জবাব দিতে দাঁড়ালে আদালত তাঁর কাছে জানতে চান, আপনি কি স্বীকার করেন যে নির্বাচন নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। শুধুই শপথ নিয়ে সমস্যা?

জবাবে ব্যারিস্টার খোকন বলেন, ‘নির্বাচন কেমন হয়েছে সে প্রশ্নের কোনো জবাব দেব না। এ বিষয়ে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআইবি) প্রতিবেদনে সব আছে। তবে আমার বক্তব্য দশম জাতীয় সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে একাদশ সংসদের সদস্যরা শপথ নিতে পারেন না। এটা সংবিধানবিরোধী।’ তিনি বলেন, রিট আবেদনকারী সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী। তাই তিনি রিট করার অধিকার রাখেন। তিনি ওই নির্বাচনে প্রার্থী প্রার্থী না হলেও জনস্বার্থে এ রিট চলতে পারে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা