kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

চলে গেলেন সাংবাদিক আমানউল্লাহ কবির

নিজস্ব প্রতিবেদক ও জামালপুর প্রতিনিধি   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চলে গেলেন সাংবাদিক আমানউল্লাহ কবির

জাতীয় প্রেস ক্লাবে গতকাল সাংবাদিক আমানউল্লাহ কবিরের জানাজা শেষে শ্রদ্ধা নিবেদন। ছবি : কালের কণ্ঠ

সাংবাদিক নেতা আমানউল্লাহ কবির ইন্তেকাল করেছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত মঙ্গলবার রাত পৌনে ১টার দিকে তিনি শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বর্ণাঢ্য জীবনপরিক্রমায় ২৪ জানুয়ারি ৭২ বছর পূর্ণ করতেন সাংবাদিক নেতা আমানউল্লাহ কবির। কিন্তু এর আগেই মৃত্যু কেড়ে নিল তাঁকে। তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতারা।

স্বজনরা জানায়, আমানউল্লাহ কবির ডায়াবেটিস ও লিভারের নানা জটিলতায় ভুগছিলেন। বছর তিনেক আগে হার্ট অ্যাটাক হওয়ার পর থেকেই তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হচ্ছিল। তিনি স্ত্রী, দুই মেয়ে ও তিন ছেলে রেখে গেছেন। ১৯৪৭ সালের ২৪ জানুয়ারি জামালপুরে জন্মগ্রহণ করেন আমানউল্লাহ কবির। কর্মজীবনে তিনি সর্বশেষ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের জ্যেষ্ঠ সম্পাদক ছিলেন। দীর্ঘ পেশাজীবনে তিনি বাংলা ও ইংরেজি দুই ভাষার সংবাদপত্রেই কাজ করেছেন। আশির দশকে এস এম আলীর সম্পাদনায় ডেইলি স্টার প্রকাশিত হলে এর প্রথম বার্তা সম্পাদক ছিলেন আমানউল্লাহ কবির। এ ছাড়া দৈনিক নিউ নেশনের বার্তা কক্ষের প্রধান, ইংরেজি দৈনিক টেলিগ্রাফের নির্বাহী সম্পাদক, দৈনিক ইনডিপেনডেন্টের প্রতিষ্ঠাকালীন নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বিএনপি সরকারের সময়ে রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদমাধ্যম বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ও প্রধান সম্পাদকের দায়িত্ব পান তিনি। আমানউল্লাহ কবিরের সম্পাদনায় ২০০৪ সালে প্রকাশিত হয় বাংলা দৈনিক আমার দেশ।

গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ৬টায় কল্যাণপুরের দারুস সালাম ফুরফুরা শরিফ মসজিদে মরহুমের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর তাঁর মরদেহ সকাল ১১টার দিকে প্রেস ক্লাব চত্বরে আনা হলে হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা ঘটে। এ সময় তাঁর দীর্ঘদিনের সহকর্মী সাংবাদিকদের দুই চোখের কোণে পানি জমে। সেখানে তাঁর দ্বিতীয় জানাজার পর বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে তাঁর মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। জাতীয় প্রেস ক্লাব, বিএনপি, বিএফইউজে ও ডিইউজের দুই অংশ, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, ফটো জার্নালিস্ট ইউনিয়ন, জামালপুর সমিতি, বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম প্রভৃতি সংগঠন থেকে প্রয়াত সাংবাদিকের কফিনে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। আমানউল্লাহ কবিরের বড় ছেলে শাতিল কবির জানাজার আগে তাঁর বাবার জন্য সবার দোয়া চান।

জামালপুরের মেলান্দহে রেখিরপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় আরেক দফা জানাজার পর পারিবারিক কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হবে।

আমানউল্লাহ কবিরের মরদেহ গতকাল সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে তাঁর গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার সময় জামালপুর প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে রাখা হয়। সেখানে জামালপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি আজিজুর রহমান ডল ও সাধারণ সম্পাদক দুলাল হোসাইনসহ নানা পেশার মানুষ কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা