kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

ইট পড়ে ১৬ দিনের শিশুর মৃত্যু

কষ্ট থাকলেও অসহায় মা-বাবা থানায় করলেন অপমৃত্যু মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘সাড়ে ১১ বছর বয়সে বড় মেয়ে আনিলা অসুস্থ হয়ে মারা যায়। এর দেড় বছর পর মাথায় ইট পড়ে মারা গেল ১৬ দিনের ছেলে আব্দুল্লাহ। এই শোক কিভাবে সামাল দেব। এভাবে সন্তানের মৃত্যুতে কষ্ট আছে, ক্ষোভ আছে। কিন্তু কী করবো বলেন, আমার সন্তানের মৃত্যুর জন্য যে আধলা দায়ী, সেই ইটটাও দুটি শিশু খেলার ছলে ফেলেছিল। তাই এই বিচার আমি কার কাছে দেব ভেবে পাচ্ছি না।’ গতকাল শনিবার কালের কণ্ঠকে কথাগুলো বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন দরিদ্র কবির হোসেন।

পেশায় গাড়িচালক কবিরের ১৬ দিনের শিশুসন্তান আব্দুল্লাহ গত শুক্রবার রাজধানীর মিরপুর আহমেদনগর পাইকপাড়া জোনাকি রোডের একটি চারতলা ভবনের ওপর থেকে পড়া ইটের আঘাতে মারা যায়। এ মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনার পর তাঁর স্ত্রী লাইজু বেগম পাগলপ্রায়।

শুক্রবার সকালে খালা মোছা. তামিম শিশু আব্দুল্লাহকে কোলে নিয়ে বাসার সামনে রোদে দাঁড়িয়ে ছিল। শিশুটির মা লাইজু বেগম তখন গোসলে ছিলেন। ওই সময় পাশের চারতলা ভবনের ওপর থেকে একটি ইট পড়ে শিশুটিকে আঘাত করে। শিশুটি মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হলে দ্রুত তাকে শ্যামলী শিশু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে শিশুটিকে নেওয়া হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শিশুটির খালা তামিম বলেন, ‘আমার কোলে ঘুমিয়ে ছিল আব্দুল্লাহ। হঠাৎ ওপর থেকে একটি ইট প্রথমে আমার মাথার পাশে পড়ে। এতে আমার মাথা ফেটে যায়। এরপর ইটটি আব্দুল্লাহর মাথায় পড়ে। তখন আব্দুল্লাহকে কোলে ধরে রাখতে পারিনি। কোল থেকে নিচে পড়ে যায়।’ শিশু আব্দুল্লাহর মৃত্যু ঘটে যে ইটের আঘাতে তার নেপথ্যেও রয়েছে দুটি শিশু। বাসার তিনতলার বারান্দা থেকে খেলার ছলে শিশুরা ইটটি নিচে ফেলে দিলে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। শিশু দুটির একজনের বয়স সাড়ে তিন বছর, অন্যজনের দুই বছর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা