kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৯ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৬ সফর ১৪৪২

জব্দ সোনা নিলামের কথা বলে কোটি টাকা আত্মসাৎ

তিন প্রতারক গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শুল্ক বিভাগের জব্দ করা সোনা কম টাকায় নিলামে দেওয়ার কথা বলে মানুষের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারকচক্র। অবশেষে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) হাতে দুই সহযোগীসহ ধরা পড়েছেন এই চক্রের প্রধান খন্দকার মো. ফারুক ওরফে ওমর মবিন।

ওমর মবিন নিজেকে শুল্ক বিভাগের সহকারী কমিশনার (কাস্টমস কমিশনারের পিএস) হিসেবে পরিচয় দিতেন। তিনি পাঁচ-সাত বছর আগে জামালপুরের এক সংসদ সদস্যের ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস) ছিলেন। ওই চাকরি ছাড়ার পর তিনি প্রতারণা শুরু করেন।

গত বুধবার রাজধানীর বেইলি রোডে অবস্থিত নবাবী ভোজ রেস্টুরেন্টের সামনে থেকে ওমর মবিন, তাঁর সহযোগী ইলিয়াস ওরফে নুর ইসলাম সরকার ও সাইফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে সিআইডি। তাঁদের কাছ থেকে ১৮টি ভিজিটিং কার্ড, চারটি ব্যাংকের চেকের পাতা, সাতটি মোবাইল ফোনসেট ও ১৩টি সিম কার্ড উদ্ধার করা হয়।

সিআইডি সদর দপ্তরে গতকাল বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিশেষ পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নাত আরা জানান, গ্রেপ্তারকৃতরা শুল্ক বিভাগের জব্দ করা সোনার বার কম টাকায় নিলামে দেওয়ার কথা বলে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। শুধু তা-ই নয়, বাংলাদেশ ব্যাংকের পদস্থ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে ব্যাংকে আটকে থাকা অর্থ ছাড় করিয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়েও তাঁরা অনেকের কাছ থেকে টাকা-পয়সা হাতিয়ে নেন। আর প্রতারণার আগে তাঁরা জাল কাগজপত্র তৈরি করেন। এর সঙ্গে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ ও বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারাও জড়িত থাকতে পারেন বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে মৃণাল নামের এক ভুক্তভোগী বলেন, ‘ওমর মবিন আমাকে একদিন ফোন করে বলেন যে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন সময়ে যেসব সোনা জব্দ করেছে সেসব নিলামে বিক্রি করা হবে। আমি ওই সোনা কিনতে রাজি থাকলে সে কম দামে আমার কাছে এসব বিক্রির ব্যবস্থা করতে পারবেন। পরে সোনা জব্দসংক্রান্ত কাগজপত্র (ভুয়া) দেখিয়ে গত ৬ জানুয়ারি আমার কাছ থেকে ওই চক্র ২৪ লাখ টাকা নিয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা