kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

এমপি বদির বিরুদ্ধে প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ বিএনপির

বিব্রত আওয়ামী লীগ

তোফায়েল আহমদ, কক্সবাজার ও জাকারিয়া আলফাজ, টেকনাফ    

৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



একাদশ সংসদ নির্বাচন ঘিরে কক্সবাজারের সীমান্তবর্তী উখিয়া-টেকনাফ নির্বাচনী এলাকা উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। দুই দিনের ঘটনার জের ধরে গতকাল রবিবার এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির বিরুদ্ধে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ করেছেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরী।

গত শুক্রবার গভীর রাতে টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়ন বিএনপির এক নেতার বাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে। এর আগে ওই এলাকায় তাঁর গাড়িতে হামলা ও গুলি করা হয়েছে বলে দাবি করেন সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি। শনিবার সংসদ সদস্য প্রতিবাদ সমাবেশ করে এ ঘটনার জন্য বিএনপি মনোনীত প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরীকে দায়ী করেন। আগামী ৩০ ডিসেম্বর দেখিয়ে দেবেন বলেও তিনি হুংকার দেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রকাশ্য জনসভায় সংসদ সদস্য বদির এ রকম হুংকারে এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। ওই প্রতিবাদসভায় সংসদ সদস্য বদি প্রতিপক্ষ বিএনপি মনোনীত প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরীকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। কক্সবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি শাহজাহান চৌধুরী গতকাল রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগপত্রে শাহজাহান চৌধুরী উল্লেখ করেছেন, তিনি কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে চারবার সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি বলেছেন, ‘এমপি আবদুর রহমান বদি কোনো প্রার্থী না হয়েও তাঁর স্ত্রীর পক্ষে গত শনিবার নির্বাচনী জনসভায় আমার গাড়ি ভাঙচুর করবেন, আমাকে টেকনাফ যেতে দেবেন না, এমনকি আমার প্রাণনাশ করবেন বলে হুমকি দিয়েছেন।’

অভিযোগপত্রে শাহজাহান চৌধুরী আরো বলেছেন, ‘এমপি বদি উক্ত জনসভায় তাঁর স্ত্রীকে যারা ভোট দেবে না তাদের নাম-ঠিকানা তাঁর কাছে জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছেন। এমপি বদি এলাকায় এভাবে এক ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন।’

অন্যদিকে উখিয়া উপজেলা সদরে শনিবার প্রতিবাদ সমাবেশ করে সংসদ সদস্য বদি বিএনপি প্রার্থীকে হুমকি-ধমকি দিয়ে যে বক্তব্য দিয়েছেন তার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। প্রায় সাড়ে চার মিনিটের ভিডিওটি জনমনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেছে।

ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে শাহজাহান চৌধুরীকে সংসদ সদস্য বদির ‘তুইতোকারি’ করে সম্বোধন করতে শোনা যায়। সেই সঙ্গে সংসদ সদস্যের স্ত্রী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শাহীন আক্তারসহ তাঁর পরিবার নিয়ে অহমিকা প্রকাশ করেন, যা লোকজন ভালোভাবে নেয়নি। এমনকি আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারাও বিব্রত বোধ করছেন। সংসদ সদস্য বদির এমন লাগামহীন বক্তব্যে সরকারি দলের ভাবমূর্তিও প্রশ্নের মুখে পড়েছে বলে দলের নেতারা মনে করছেন।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির নাম ইয়াবা পাচারকারীদের তালিকায় থাকায় এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত হওয়াসহ নানা কর্মকাণ্ডে তিনি সমালোচিত। এ কারণে তাঁকে এবার সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। বদির পরিবর্তে এবার নৌকার টিকিট পেয়েছেন তাঁর স্ত্রী শাহীন আক্তার চৌধুরী।

টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের এক জ্যেষ্ঠ নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ভোটে নৌকা জিতবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। শেখ হাসিনা সরকার যে হারে উন্নয়ন করেছে তাতে সাধারণ মানুষ আবারও শেখ হাসিনার নৌকাকে বিজয়ী করবে। বদি বা তাঁর স্ত্রীকে দেখে নয়, এ আসনের জনগণ নৌকা দেখে ভোট দেবে। নৌকার বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না। তবে উন্নয়নের প্রতীক নৌকার গণজোয়ারের মাঝেও বর্তমান সংসদ সদস্য বদির বেশ কিছু কর্মকাণ্ড বিতর্ক বাড়াচ্ছে।’

ওই নেতা আরো বলেন, ‘নৌকার জয়ের সম্ভাবনা যেখানে প্রবল, সেখানে প্রতিপক্ষের লোকজনকে হুমকি-ধমকি দিয়ে বা পুলিশকে ব্যবহার করে ভোট আদায় করার দরকার আছে বলে মনে করছি না। বরং বদির এসব কর্মকাণ্ডে একদিকে দল যেমন বিতর্কিত ও প্রশ্নবিদ্ধ হবে, তেমনি তাঁর কর্মকাণ্ডে নির্বাচন কমিশনও বিব্রত বোধ করতে পারে। তাতে দলের ভাবমূর্তিও নষ্ট হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা