kalerkantho

বুধবার । ২৪ জুলাই ২০১৯। ৯ শ্রাবণ ১৪২৬। ২০ জিলকদ ১৪৪০

ঘরে বায়ুদূষণ রোধে...

১৫ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঘরে বায়ুদূষণ রোধে...

অনেক বিশেষজ্ঞের মতে, বাইরের বাতাসের চেয়ে ঘরের বাতাস বেশি দূষিত থাকে। আপনার ঘরের বাতাসে  দুই থেকে পাঁচ গুণ বেশি দূষণ ঘটে। অনেকেই জানে না যে ঘরের পরিবেশের কারণে মানুষ নানা ধরনের রোগে ভোগে। ঘুমের বালিশ থেকে শুরু করে ঘরের দেয়ালের স্পর্শে হাতে বিষাক্ত উপাদান এবং ব্যাক্টেরিয়া চলে আসতে পারে। এ অবস্থায় ঘরে বিশুদ্ধ বাতাস পেতে নিন কয়েকটি পরামর্শ

বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা

ঘরের বাতাসে দূষণের অন্যতম কারণ তা আবদ্ধ থাকে। কাজেই এ বাতাস বের করে দেওয়া এবং প্রবেশের ভালো ব্যবস্থা থাকতে হবে। জানালা-দরজা খুলে দিন। ভেতরের গরম বাতাস বের হয়ে যাবে। বাইরে বাতাস অস্বাস্থ্যকর হলেও তা এতটা নয়। কাজেই তুলনামূলক সতেজ বাতাস প্রবেশ করে গৃহে। এগুলো খুলে রাখলে বাতাস চলাচল করতে থাকবে।

বিসওয়াক্স মোমবাতি

ঘরে সুগন্ধি মোমবাতি জ্বালানোর অভ্যাস থাকলে প্যারাফিন মোম জ্বালাবেন না। এগুলো পেট্রোলিয়াম থেকে বানানো হয় এবং এসব মোম থেকে বেনজেন, টলুইনের নিঃসরণ ঘটে। কিন্তু বিসওয়াক্স মোম থেকে উপকার মিলতে পারে। এই মোম প্রজ্বালনে বাতাসের দূষণ রোধ হয়। বাতাস থেকে ক্ষতিকর উপাদান বের করে দেয়। মৌচাকের মোম দিয়ে বানানো হয় এই মোম। খুব ধীরে ধীরে জ্বলে এবং ভালো গন্ধ ছড়ায়। তাছাড়া এই মোম অ্যাজমার রোগীদের জন্য খুবই ভালো। ধুলা থেকে যে অ্যালার্জি হয় তা-ও নিরাময় করে।

সল্ট ল্যাম্প

একে বলা হয় সল্ট ক্রিস্টাল পণ্য। এই প্রদীপ দূষিত বায়ুতে বিদ্যমান জীবাণু, উত্তেজক এবং অ্যালার্জি সৃষ্টিকারী উপাদান দূর করে বায়ু থেকে বাষ্প শুষে নিয়ে। বিশেষজ্ঞদের মতে, হিমালয়ার পিংক সল্ট প্রাকৃতিকভাবেই আয়নিক বায়ু বিশুদ্ধকারী উপাদান। পরিবেশ থেকে বিষাক্ত উপাদান শুষে নেয় এবং এগুলোকে নিষ্ক্রিয় করে ফেলে।

ফুড অবলম্বনে সাকিব সিকান্দার

মন্তব্য