kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

জামালপুর ইকোনমিক জোন

চাঁদাবাজি নিয়ে মহড়া আ. লীগের দুই পক্ষে

জামালপুর প্রতিনিধি   

১৫ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জামালপুরে অর্থনৈতিক অঞ্চলে মাটি ভরাটের কাজে চাঁদাবাজির ভাগাভাগি নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে দেশি অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পাল্টাপাল্টি মিছিল ও শক্তি প্রদর্শনের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় সদর উপজেলার তিতপল্লা ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয় ভাঙচুর করা হয়।

গতকাল রবিবার দুপুর ১২টা থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত এসব ঘটনা ঘটে। তিতপল্লা ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা হারুন অর রশিদ গ্রুপ এবং সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল আজিজ গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিগত ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা হারুন অর রশিদের কাছে হেরে যান আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল আজিজ। কিন্তু নির্বাচনের পরপরই কাউন্সিলে তিতপল্লা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন আব্দুল আজিজ। এ নিয়ে বর্তমান চেয়ারম্যান ও সাবেক চেয়ারম্যানের মধ্যে দা-কুমড়া সম্পর্ক সৃষ্টি হয়।

সাবেক ও বর্তমান এ দুই চেয়ারম্যানের এই কোন্দলের প্রভাব পড়ে তিতপল্লা ইউনিয়নে ৫০০ একর জমিতে নির্মাণাধীন অর্থনৈতিক অঞ্চলের মাটি ভরাটের কাজের ওপর। অভিযোগ উঠেছে, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে পাওয়া মোটা অঙ্কের টাকার চাঁদার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে দুই পক্ষের বিরোধ চলছে। এর মধ্যে বর্তমান চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ অবস্থান নেন এই অর্থনৈতিক অঞ্চলসংক্রান্ত আওয়ামী লীগদলীয় তদারকি কমিটির সদস্য জামালপুর শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিজন কুমার চন্দের পক্ষে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, এ অবস্থায় গতকাল রবিবার দুপুর ১২টার দিকে সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অঞ্চলে মাটি ভরাটের কাজে চাঁদাবাজির প্রতিবাদে তাঁর সমর্থক চার শতাধিক লোক নিয়ে তিতপল্লা ইউপি কার্যালয় ঘেরাও করে। পরে দুপুর দেড়টার দিকে সেখান থেকে লাঠিসোঁটা ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে তারা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে অর্থনৈতিক অঞ্চলের কাছেই জামালপুর-টাঙ্গাইল মহাসড়কের জামতলী মোড়ে গিয়ে মহড়া দেয়। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই আওয়ামী লীগ নেতা বিজন কুমার চন্দের নেতৃত্বে চার ইউনিয়নের দুই সহস্রাধিক আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী লাঠিসোঁটা ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে পাল্টা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এ নিয়ে জামতলী মোড়ের প্রধান সড়কের দুই পাশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এবং সহস্রাধিক দোকানপাট প্রায় দুই ঘণ্টা বন্ধ থাকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা