kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা

আবেদন খারিজ, খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতেই বিচার চলবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। ফলে কারাভ্যন্তরে বসানো আদালতে খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে বিচার চলতে কোনো আইনি বাধা নেই।

এদিকে বিশেষ ক্ষমতা আইনে করা কুমিল্লার এক মামলায় খালেদা জিয়ার জামিনের জন্য নতুন করে আবেদন করতে বলা হয়েছে। আগের করা আবেদন বিধিসম্মত না হওয়ায় নতুন আবেদন করতে বলেছেন আদালত। এ অবস্থায় আজ সোমবার নতুন আবেদন করতে পারেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। এ ছাড়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার আপিলের ওপর শুনানি অব্যাহত রয়েছে। আজ আবার শুনানি হবে।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি : এই মামলায় খালেদা জিয়া আদালতে না আসায় তাঁর অনুপস্থিতিতেই কারাভ্যন্তরে বসানো আদালতে বিচার চলার পক্ষে বিশেষ জজ আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল রবিবার এই আদেশ দেন। আদালতে খালেদার পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট এ জে মোহাম্মদ আলী, অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। দুদকের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান।

গত ৫ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়া বিশেষ জজ আদালতে হাজির হয়ে বলেন, বারবার আদালতে আসতে পারবেন না। এরপর কয়েকটি ধার্য তারিখে তিনি উপস্থিত হননি। এ অবস্থায় গত ২০ সেপ্টেম্বর বিশেষ জজ আদালত খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতেই বিচার চলার পক্ষে আদেশ দেন। আদালত খালেদা জিয়াকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দিয়ে এ আদেশ দেন। এ আদেশের বিরুদ্ধে গত ২৭ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টে আবেদন করা হয়। গত ১০ অক্টোবর এ আবদেনের ওপর শুনানি সম্পন্ন হয়। গতকাল ওই আবেদন খারিজ করে দেন হাইকোর্ট। ফলে খালেদার অনুপস্থিতিতে বিচার চলতে বাধা নেই।

কুমিল্লার বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলা : জেলার চৌদ্দগ্রামে আইকন পরিবহনের বাসে বোমা নিক্ষেপ করে আগুন দিয়ে আটজনকে হত্যার অভিযোগে ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লায় দুটি মামলা (একটি হত্যা মামলা ও একটি বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলা) করা হয়। এর মধ্যে বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় গত ১৩ সেপ্টেম্বর কুমিল্লার আদালত খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ করেন। এই খারিজ আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আবেদন করেন তাঁর আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। কুমিল্লার আদালতের আদেশের অনুলিপি ছাড়াই এ আবেদন করা হয়। পরে আদেশের কপি পাওয়ার পর তা সম্পূরক আবেদন আকারে আদালতে দাখিল করা হয়। এ অবস্থায় বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ আবেদনের ওপর শুনানি হয়।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় শুনানি অব্যাহত : বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহীম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার আপিলের শুনানি চলছে। গতকাল খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা