kalerkantho

৮ জেলায় বিএনপি-জামায়াতের ৩৭ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

নারায়ণগঞ্জে বিএনপির ৫০০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পাঁচ মামলা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের প্রতিবাদে বের করা মিছিল থেকে নাশকতা সৃষ্টির অভিযোগসহ বিভিন্ন অভিযোগে আট জেলায় বিএনপি-জামায়াত এবং এদের অঙ্গসংগঠনের ৩৭ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার রাত থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এ ছাড়া রাজনৈতিক ঘটনার বাইরে মাদকসহ অন্যান্য মামলায় পুলিশের নিয়মিত অভিযানে হবিগঞ্জ ও জামালপুরে ৬৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ময়মনসিংহ (আঞ্চলিক) : ময়মনসিংহের নান্দাইলে গ্রেপ্তার হন ময়মনসিংহ-৯ আসনের বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী সৌদি বিএনপির নেতা এ কে এম রফিকুল ইসলাম (৫৮)।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনে দলের মনোনয়নপ্রত্যাশী খালেদ হোসেন মাহবুব শ্যামল বুধবার সন্ধ্যায় জেলা কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন।

ধামইরহাট-পত্নীতলা (নওগাঁ) : জেলার ধামইরহাটে থানা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মো. আবু বক্কর সিদ্দিকসহ পাঁচ নেতাকর্মীকে বুধবার রাতে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

হবিগঞ্জ : জেলা পুলিশ বুধবার রাত থেকে গতকাল সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে ২০ জন পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করে। তাদের মধ্যে ১৬ জন পরোয়ানাভুক্ত ও চারজন নিয়মিত মামলার আসামি।

চুয়াডাঙ্গা : জেলা জামায়াতের আমির আনোয়ারুল হক মালিকসহ জামায়াত-শিবিরের আট নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। বুধবার রাতে শহরের দলীয় কার্যালয় থেকে বিস্ফোরকসহ তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

জয়পুরহাট : নাশকতার পরিকল্পনা নিয়ে গোপন বৈঠকের সময় জিহাদি বইসহ জয়পুরহাটের ধলাহার ইউনিয়ন জামায়াতের আমিরসহ ১৯ নেতাকর্মীকে আটক করে পুলিশ। গতকাল সকালে ধলাহার উচ্চ বিদ্যালয়ের মসজিদ থেকে তাদের আটক করা হয়।

জামালপুর : ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ের প্রতিবাদে মিছিলের সময় নাশকতার অভিযোগে জামালপুর শহর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাঈন উদ্দিন বাবুলসহ চারজনকে বিশেষ ক্ষমতা আইনে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ছাড়া চলমান মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে গতকাল ভোর পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ৩৯ জনকে আটক করে পুলিশ।

মন্তব্য