kalerkantho

ছয় স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ জনের মৃত্যু

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কুমিল্লা, লক্ষ্মীপুর, সিরাজগঞ্জ, নড়াইল, নোয়াখালী ও ফরিদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে ৯ জন। এর মধ্যে কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলায় পৃথক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় দুজনের। একজন করে মারা গেছে বাকি পাঁচ জেলায়। বিস্তারিত নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের খবরে—

কুমিল্লা থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক পুলিশের বরাত দিয়ে জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে চট্টগ্রামগামী একটি ছোট কাভার্ড ভ্যান কোরপাই এলাকায় থেমে থাকা একটি ট্রাকের সঙ্গে ধাক্কা খায়। এতে কাভার্ড ভ্যানটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই মারা যান চালক আবু সেলিম। তিনি শেরপুর জেলার ভারেরা গ্রামের বাসিন্দা। এ ছাড়া গতকাল সকাল ৭টার দিকে উপজেলার কালাকচুয়া ‘মাস্টার ব্রিক্স’ সংলগ্ন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশ থেকে পুলিশ অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে। তাঁর বয়স আনুমানিক ৫০ বছর। পুলিশের ধারণা, কোনো যানবাহনের ধাক্কায় তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি জানান, সেখানে সিএনজিচালিত দুটি অটোরিকশার সংঘর্ষে মিম (৫) নামের এক শিশু মারা গেছে। আহত হয়েছে ৯ জন। গত বুধবার সন্ধ্যায় সদর উপজেলার মজুচৌধুরীরহাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মিম উপজেলার শাকচর গ্রামের কামাল হোসেনের মেয়ে। আহতরা হলেন সোহাগ, রাশেদ, মাসুদ, রাকিব, আসমা, জোবায়ের, আবুল কালাম ও ছিদ্দিক।

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, জেলার বাস টার্মিনাল এলাকায় হেঁটে যাওয়ার সময় দুই বাসের মধ্যে চাপা পড়ে সাথী খাতুন (৪০) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল সকালে সিরাজগঞ্জ পৌর এম এ মতিন বাস টার্মিনালে এ দুর্ঘটনা ঘটে। সাথী খাতুন সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়নের খাগা গ্রামের নুরে আলমের স্ত্রী।

নড়াইল প্রতিনিধি জানান, নড়াইল-কালনা সড়কের সীমাখালী নামক এলাকায় বাসের ধাক্কায় এক মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। নিহত যুবকের নাম আকাশ মোল্যা। তিনি কালিয়া উপজেলার পুরুলিয়া ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের ইউনুস মোল্যার ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, চাকা ফেটে যাওয়ায় বাসের চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেললে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নোয়াখালী প্রতিনিধি জানান, হাতিয়া উপজেলায় যাত্রীবাহী জিপগাড়ির সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে মাওলানা মাকসুদুল হক (৪৯) নামের এক মোটরসাইকেল আরোহী মারা গেছেন। তিনি স্থানীয় একটি মাদরাসার অধ্যক্ষ ছিলেন। গতকাল সকাল ১০টার দিকে উপজেলার নলচিরা-জাহাজমারা সড়কের চৌমুহনী বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরে এলাকাবাসী ও মাদরাসার শিক্ষার্থীরা ওই জিপগাড়িতে আগুন দেয় এবং তিন ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে রাখে।

ফরিদপুর থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, সেখানে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত বিকাশ কুমার দাস নামের এক তরুণ ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। বিকাশ ফরিদপুর সদরের কানাইপুর ইউনিয়নের রনকাইল গ্রামের সুবোধ চন্দ্র দাসের ছেলে। পরিবারের লোকজন জানায়, গত ৭ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় চালকের পাশে বসে বিকাশ বাড়ি ফিরছিল। কানাইপুর আখ সেন্টারের কাছে পৌঁছলে রাস্তার পাশে নসিমনে

রাখা পল্লী বিদ্যুতের একটি খুঁটি অটোরিকশার সামনের কাচ ভেঙে বিকাশের বুকে গিয়ে লাগে।

মন্তব্য