kalerkantho

শনিবার । ৮ মাঘ ১৪২৮। ২২ জানুয়ারি ২০২২। ১৮ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

যুদ্ধাপরাধী মান্নানের জানাজা পড়ানো ইমাম বরখাস্ত

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি   

২১ ডিসেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী গাজী আবদুল মান্নানের জানাজা পড়ানোর দায়ে কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদের ইমাম মোবারক হোসেন বুলবুলকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদের জরুরি বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর আগে সোমবার রাতে মসজিদের সভাপতি করিমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আছমা আরা বেগম তাঁকে সাময়িকভাবে বরখাস্তের নির্দেশ দেন।

করিমগঞ্জের রাজাকার কমান্ডার গাজী আবদুল মান্নান (৮৯) গত সোমবার ভোরে নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর এলাকায় এক আত্মীয়ের বাড়িতে মারা যান।

বিজ্ঞাপন

একাত্তরে অপহরণ, নির্যাতন ও হত্যার মতো যুদ্ধাপরাধের দায়ে চলতি বছর ৩ মে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল মান্নানসহ কিশোরগঞ্জের চার রাজাকার সদস্যের মৃত্যুদণ্ডের রায় দেন, আরো একজনকে দেওয়া হয় আমৃত্যু কারাদণ্ড। তবে এই বিচার শুরুর আগে থেকেই মান্নান পলাতক ছিলেন।

সোমবার দুপুরেই তাঁর লাশ নেওয়া হয় করিমগঞ্জের নিজ বাড়িতে। তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে মাইকিং করে প্রথমে করিমগঞ্জ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও পরে কলেজ মাঠে জানাজা হবে বলে জানানো হয়। কিন্তু স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধের মুখে করিমগঞ্জের ইউএনও ওই স্থানগুলোতে জানাজার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা দেন। পরে মান্নানের গ্রাম ঘোনাপাড়ায় জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়। সেই জানাজায় ইমামতি করেন উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদের ইমাম মোবারক হোসেন বুলবুল। ঘটনা জানাজানি হলে এলাকায় ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়। রাতেই ইমামকে মসজিদের সভাপতি করিমগঞ্জের ইউএনও এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। সেখানে তিনি জানাজা পড়ানোর কথা স্বীকার করেন।

এ বিষয়ে ইউএনও আছমা আরা বেগম বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাসহ সাধারণ মানুষের আবেগ-অনুভূতি বিবেচনায় নিয়ে উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদের ইমাম মোবারক হোসেন বুলবুলকে বরখাস্ত করা হয়েছে। ’



সাতদিনের সেরা