kalerkantho

সোমবার। ১৯ আগস্ট ২০১৯। ৪ ভাদ্র ১৪২৬। ১৭ জিলহজ ১৪৪০

বিকল পাম্পে অচল আবাদ

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৬ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কিশোরগঞ্জ সদরের যশোদল ইউনিয়নের স্বল্পদামপাড়া গ্রামের একমাত্র সেচ পাম্পটি বন্ধ থাকায় ১৫০ একর বোরো জমি অনাবাদি থাকার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এতে দুশ্চিন্তায় পড়েছে কমপক্ষে ৫০০ কৃষক। সেচের অভাবে ইতিমধ্যে তাদের বেশ কিছু সবজিক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। অনেকে চারা সংগ্রহ করে রাখলেও সেচের অভাবে সেগুলো লাগাতে পারছে না। কৃষকদের অভিযোগ, বিএডিসির স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ও সেচপাম্পের অপারেটরের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণেই পাম্পটি বন্ধ হওয়ায় তারা বিপাকে পড়েছে।

জানা গেছে, স্বল্পদামপাড়া গভীর নলকূপটি ১৯৭৪ সালে বসানো হয়। ৪২ বছরের পুরনো পাম্পটি বর্তমানে মেরামতেরও অযোগ্য হয়ে পড়েছে। আগে এটি ডিজেলচালিত মেশিন দিয়ে চালানো হতো। ২০০৬ সালে সেখানে বৈদ্যুতিক মোটর বসানো হয়। কিন্তু মাটির নিচে পাম্পের প্রযুক্তিটি পরিবর্তন করা হয়নি। এতে সেটি অচল হয়ে পড়ে।

এ ব্যাপারে পাম্পের অপারেটর আবদুস সাত্তার দুলাল জানান, পুরনো টারবাইন পাম্প বা যন্ত্রপাতি বিএডিসিতে নেই, বাজারেও পাওয়া যায় না। এখন সেচ মেশিনের নতুন প্রযুক্তি সাবমারসিবল পাম্প। এ ধরনের একটি পাম্প বসিয়ে দিলে এলাকার সেচ সমস্যা দূর হতো। কিন্তু চার বছর ধরে বিএডিসির পেছনে ঘুরেও কোনো কাজ হয়নি।

কৃষক হেলাল উদ্দিন জানান, বোরো জমির জন্য চারা সংগ্রহ করে রেখেছেন তিনি। কিন্তু সেচের অভাবে ক্ষেত তৈরি করতে পারছেন না। অথচ আবাদের সময় শেষ হয়ে যাচ্ছে।

স্বল্পদামপাড়া গ্রামের কৃষক মনসুর আলী সবজিচাষের পাশাপাশি সবজির চারাও কৃষকদের মাঝে সরবরাহ করেন। এবার কোনোটাই সম্ভব হয়নি। প্রায় ১৫ হাজার পেঁপে চারা বাড়িতেই নষ্ট হয়ে গেছে। এভাবে ক্ষতিগ্রস্ত অনেক কৃষক তাদের সমস্যার কথা জানিয়েছে। এ সময় তাদের স্বার্থ সংরক্ষণের জন্য জরুরি ভিত্তিতে সেচ পাম্পটি মেরামতের জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তারা।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) কিশোরগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী (ক্ষুদ্রসেচ) শিবেন্দ্র নারায়ণ গোপ বলেন, ‘স্বল্পদামপাড়ার সেচ পাম্পটি সচল, না বিকল তা অপারেটর আমাকে জানাননি। তা ছাড়া ওইখানে সাবমারসিবল পাম্প স্থাপনের জন্য তিনি যথাযথভাবে আবেদনও করেননি। আগের প্রকল্পের স্থলে নতুন কোনো প্রকল্পে প্রবেশ করতে হলে নিয়ম মেনে যেতে হয়, এটা হুট করে হয়ে যায় না।’ তবে এ সময় তিনি কৃষকদের স্বার্থে বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।

মন্তব্য