kalerkantho

শুক্রবার । ২৩ আগস্ট ২০১৯। ৮ ভাদ্র ১৪২৬। ২১ জিলহজ ১৪৪০

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

ছাত্রলীগের এক পক্ষের হামলায় দুই কর্মী আহত

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৬ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানার পক্ষের নেতাকর্মীর হামলায় দুই ছাত্রলীগকর্মী আহত হয়েছেন। গতকাল শনিবার দুপুর পৌনে ৩টার দিকে শের-ই-বাংলা ফজলুল হক হলের সামনে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে একজনকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এদিকে এঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানাকে সংগঠন থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ কালের কণ্ঠকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি আরো জানান সহ-সভাপতি রাশেদুল ইসলাম রাঞ্জুকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

আহতরা হলেন শের-ই-বাংলা ফজলুল হক হলের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী অনিক মাহমুদ বনি এবং এস এম সাজ্জাদ হোসাইন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল দুপুর আড়াইটার দিকে শের-ই বাংলা ফজলুল হক হলের সামনে ছাত্রলীগকর্মী সাজ্জাদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি পক্ষের নেতাকর্মীদের কথাকাটাকটি হয়। একপর্যায়ে সভাপতি পক্ষের আতিকুর রহমান, মেহেদি হাসান, মাহবুবুর রহমান পলাশসহ কয়েকজন সাজ্জাদকে মারধর করে। এ সময় বাধা দিতে গেলে ছাত্রলীগ সদস্য সাকিবুল হাসান বাকিকেও মারধর করে তারা। সাজ্জাদ ও বাকি সেখান থেকে চলে গেলে হলের সামনে থাকা বনিকেও মারধর করা হয়। এ সময় বনি দৌড় দিলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে তাঁকে মারধর করে হামলাকারীরা। এ ঘটনায় বনির পা গুরুতর জখম হয়। পরে তাঁকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিকে বনির ওপর হামলার প্রতিবাদে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বিনোদপুর বাজার থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে স্থানীয় ছাত্র-যুবলীগের কর্মীরা। মিছিল নিয়ে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক দিয়ে ক্যাম্পাসে ঢোকার চেষ্টা করলে ফটক বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর বিকেল ৫টার দিকে রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে তারা। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে প্রায় ১৫ মিনিট পর অবরোধ তুলে নেওয়া হয়।

মন্তব্য