kalerkantho

সোমবার। ১৯ আগস্ট ২০১৯। ৪ ভাদ্র ১৪২৬। ১৭ জিলহজ ১৪৪০

বাস্তুচ্যুতি ব্যবস্থাপনায় নীতিমালা প্রণয়নের দাবি বিভিন্ন সংগঠনের

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা   

৩ এপ্রিল, ২০১৫ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জলবায়ু উদ্বাস্তুদের অধিকার রক্ষায় জাতীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক নীতিমালা প্রণয়নের দাবি জানিয়েছে নাগরিক সমাজের ১৪টি সংগঠন ও নেটওয়ার্ক। সেই সঙ্গে ন্যানসেন সম্মেলনে জলবায়ু বাস্তুচ্যুতি বিষয়ে বাংলাদেশের দাবি তুলে ধরার আহ্বান জানান তাঁরা। গতকাল বৃহস্পতিবার খুলনায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি তুলে ধরেন বক্তারা।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা জানান, ক্রমবর্ধমান বাস্তুচ্যুতি ব্যবস্থাপনা করা বাংলাদেশের জন্য প্রায় অসম্ভব বলে স্বীকার করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এখনো জাতিসংঘে এ ব্যাপারে কোনো আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পেশ করেনি। তাই জলবায়ু বাস্তুচ্যুতি বিষয়ে বাংলাদেশের দাবি তুলে ধরার জন্য ন্যানসেন সম্মেলনকে একটি সুযোগ হিসেবে গ্রহণ করা উচিত বলে মন্তব্য করেন বক্তারা। উল্লেখ্য, ন্যানসেন ইনিশিয়েটিভের সহযোগিতায় বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে আজ শুক্রবার থেকে খুলনায় শুরু হচ্ছে জলবায়ু ও দুর্যোগতাড়িত বাস্তুচ্যুতিবিষয়ক আন্তরাষ্ট্রীয় সম্মেলন। তিন দিনব্যাপী সম্মেলনে প্রশান্ত মহাসাগরীয় ১৪টি দেশের প্রতিনিধি ছাড়াও জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক সংগঠনের শতাধিক প্রতিনিধি অংশ নিচ্ছেন।

অক্সফামের সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলন আয়োজনকারী ১৪টি সংগঠন হলো বাপা, বিপনেট-সিসিবিডি, বিসিজেএফ, সিসিডিএফ, সিএসআরএল, ক্লিন, সিডিপি, কাউন্টার ফটো, ইক্যুইটিবিডি, এফইজেবি, লিডার্স, পিআরডিআই, রূপান্তর ও উদয়ন বাংলাদেশ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়েন ক্লিনের প্রধান নির্বাহী হাসান মেহেদী। আরো বক্তব্য দেন রূপান্তরের নির্বাহী পরিচালক রফিকুল ইসলাম খোকন, সিএসআরএলের সাধারণ সম্পাদক শরমিন্দ নিলোর্মী, সিজিসির ড. আহসান উদ্দীন আহমেদ, ইক্যুইটিবিডির প্রধান সঞ্চালক রেজাউল করিম চৌধুরী ও অক্সফামের অ্যাডভোকেসি কো-অর্ডিনেটর তানভীর মাহমুদ।

সংবাদ সম্মেলন শেষে কাউন্টার ফটোর দীন মোহাম্মদ শিবলীর জলবায়ু বাস্তুচ্যুতিবিষয়ক আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও ক্যাম্পেইন পোস্টকার্ড উন্মোচন করেন খুলনা নাগরিক ফোরামের চেয়ারপারসন শেখ আবদুল কাইয়ুম।

 

মন্তব্য