kalerkantho

সোমবার । ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৪ জুন ২০২১। ২ জিলকদ ১৪৪২

বাপা ও সুন্দরবন রক্ষা কমিটির অভিমত

তেলের ক্ষতিকর প্রভাব থাকবে ৫০ বছর

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৯ ডিসেম্বর, ২০১৪ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সুন্দরবনের ভেতরে শ্যালা নদীতে তেলবাহী ট্যাংকারডুবির ঘটনায় বৈজ্ঞানিক উপায়ে তেল সংগ্রহ না করলে জীববৈচিত্র্য ব্যাপক হুমকির মধ্যে পড়বে বলে মনে করে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটি। তারা বলছে, আর এর ক্ষতিকর প্রভাব আগামী ৫০ বছর পর্যন্ত সুন্দরবনকে বহন করতে হবে।

তেল দুর্যোগগ্রস্ত সুন্দরবনের বর্তমান অবস্থা সরেজমিন পরিদর্শন শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলা হয়। 'শ্যালা নদীতে তেল ট্যাংকার দুর্ঘটনা : বিপর্যস্ত সুন্দরবনের পরিবেশ, বর্তমান অবস্থা ও করণীয়' শীর্ষক ওই সংবাদ সম্মেলন করে বাপা ও সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটি।

বাপার সাধারণ সম্পাদক ড. আবদুল মতিন বলেন, নৌমন্ত্রণালয়ের আচরণে মনে হচ্ছে, তারা কাউকে খুশির জন্য সুন্দরবন ধ্বংস করতে অদৃশ্যভাবে কাজ করছে। তিনি বলেন, এ দুর্যোগে সরকারের নিজস্ব প্রশিক্ষিত বাহিনীকে কাজে না লাগিয়ে স্থানীয়দের দিয়ে করানোর কারণে তারাও ভয়াবহ স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। ট্যাংকার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা না করে বরং পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের বিরুদ্ধে ২০০ কোটি টাকার মামলা করা উচিত ছিল। সংবাদ সম্মেলনে সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, 'বাংলাদেশের গণতন্ত্র ধ্বংস হয়েছে। এখন সুন্দরবনও ধ্বংসের পথে।'

বাপার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরীফ জামিল বলেন, পৃথিবীতে আট থেকে দশ হাজার ইরাবতী ডলফিন রয়েছে। আর শুধু শ্যালা নদীতে প্রায় ছয় হাজার ইরাবতী ডলফিন ছিল। সেখানে এখন তেমন ইরাবতী ডলফিনের আনাগোনা দেখা যায়নি।