kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৬ চৈত্র ১৪২৬। ৯ এপ্রিল ২০২০। ১৪ শাবান ১৪৪১

ব্যক্তিত্ব

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

হাকিম হাবিবুর রহমান

 

ইউনানি চিকিৎসক, সাহিত্যসেবী, সাংবাদিক ও রাজনীতিবিদ হাকিম হাবিবুর রহমানের জন্ম ঢাকার ছোট কাটরায় ১৮৮১ সালের ২৩ মার্চ। তিনি সামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে প্রভাবশালী ছিলেন। তিনি বাড়িতেই প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন। ঢাকা মাদরাসা ও কানপুর দারুল উলুম মাদরাসা থেকে তিনি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা লাভ করেন। লখনউ, দিল্লি ও আগ্রায় ইউনানি চিকিৎসা পদ্ধতিতে প্রশিক্ষণ লাভের পর তিনি ১৯০৪ সালে চিকিৎসা পেশায় আত্মনিয়োগ করেন। তিনি ছিলেন নবাব স্যার খাজা সলিমুল্লাহর ঘনিষ্ঠ সহযোগী। ১৯৩০ সালে তিনি ঢাকায় ‘তিব্বিয়া হাবিবিয়া কলেজ’ প্রতিষ্ঠা করেন। পূর্ববাংলার মানুষকে ইউনানি চিকিৎসা সেবাদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ব্রিটিশ সরকার তাঁকে ১৯৩৯ সালে ‘শেফা-উল-মুলক’ খেতাবে ভূষিত করে। তিনি বিস্তর লেখালেখিও করেছেন। তিনি ১৯০৬ সালে উর্দু মাসিক পত্র আল-মাশরিক সম্পাদনা করেন। এ ছাড়া ১৯২৪ সালে তিনি খাজা আদেলের সঙ্গে যৌথভাবে ‘যাদু’ নামে আরো একটি উর্দু মাসিক পত্রিকা প্রকাশ করেন। তাঁর অসংখ্য লেখার মধ্যে রয়েছে আল-ফারিক, হায়াত-ই-সুকরত, আসুদগান-ই-ঢাকা এবং ঢাকা পঞ্চাশ বারাস পহলে। সেই যুগের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের ব্যবহৃত ভাষা উর্দু হওয়ায় একজন বাঙালি হওয়া সত্ত্বেও তাঁর সব রচনাই ছিল উর্দু ভাষায়। তিনি পাণ্ডুলিপি, মুদ্রা, যুদ্ধাস্ত্র ইত্যাদির সংগ্রহকারী হিসেবেও খ্যাত ছিলেন। তাঁর রচনা ও সংগ্রহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারে সংরক্ষিত আছে। ১৯৩৬ সালে তিনি ঢাকা জাদুঘরকে তাঁর সংগৃহীত স্বর্ণ ও রৌপ্যমুদ্রা মিলিয়ে মোট ২৩১টি পুরনো মুদ্রা দান করেন। ১৯৪৭ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি তিনি মারা যান।

[বাংলাপিডিয়া অবলম্বনে]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা