kalerkantho

শনিবার । ২১ চৈত্র ১৪২৬। ৪ এপ্রিল ২০২০। ৯ শাবান ১৪৪১

ব্যক্তিত্ব

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

ফয়েজ আহ্মদ

সাংবাদিক ও সাহিত্যিক ফয়েজ আহ্মদের জন্ম মুন্সীগঞ্জের বিক্রমপুরে ২ মে ১৯২৮ সালে। তাঁর বাবার নাম গোলাম মোস্তফা চৌধুরী এবং মা আরজুদা বানু। ১৯৪৪ সালে কলকাতার সওগাত পত্রিকায় লেখালেখির মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি পাকিস্তান সাহিত্য সংসদের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৪৮ সালে মূলধারার সাংবাদিকতা শুরু করেন। সেই সময় তিনি ইত্তেফাক, সংবাদ, আজাদ ও পরবর্তী সময়ে পূর্বদেশ পত্রিকায় প্রধান প্রতিবেদন হিসেবে কাজ করেন। ১৯৫০ সালে ‘হুল্লোড়’ এবং ১৯৭১ সালে ‘স্বরাজ’ পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। ১৯৬৬ সালে পিকিং রেডিওতে বাংলা ভাষার অনুষ্ঠান শুরু করার জন্য তিন বছর মেয়াদে তিনি নিযুক্ত হন। তিনি ঢাকা রেডিওতে ১৯৫২-৫৪ সালে ‘সবুজ মেলা’ নামের ছোটদের বিভাগটি পরিচালনা করতেন। মুক্তিযুদ্ধের পর তিনি বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার প্রথম প্রধান সম্পাদক নিযুক্ত হন। সাংবাদিকতার পাশাপাশি তিনি সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তিনি সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটেরও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। দেশভাগের পর তিনি কমিউনিস্ট পার্টিতে যোগ দেন। ১৯৪৯ সালে মুসলিম লীগের স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধে সাংস্কৃতিক আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন। আশির দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন বছর ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন বছর সিন্ডিকেটের সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি জাতীয় কবিতা উৎসবের প্রথম পাঁচ বছর আহ্বায়ক ছিলেন। তিনি প্রধানত শিশু-কিশোরদের জন্য ছড়া ও কবিতা লিখেছেন। ‘মধ্যরাতের অশ্বারোহী’ তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ। বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদকসহ নানা পুরস্কারে তিনি ভূষিত হয়েছেন। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ সালে তিনি মারা যান।

[উইকিপিডিয়া অবলম্বনে]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা