kalerkantho

মঙ্গলবার । ৫ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

ব্যক্তিত্ব

২১ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

সাঈদ আহমদ

নাট্যকার, চিত্রসমালোচক ও শিক্ষাবিদ সাঈদ আহমদের জন্ম ঢাকায় ১ জানুয়ারি ১৯৩১ সালে। তাঁর বাবার নাম মীর্জা এফ মোহাম্মদ এবং মা জামিলা খাতুন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক বিভাগ থেকে ১৯৫৪ সালে স্নাতকোত্তর এবং লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকস থেকে ১৯৫৬ সালে পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে নানা বিভাগে কাজ করেছেন। তাঁর ইচ্ছা ছিল উচ্চাঙ্গসংগীত শিল্পী হবেন। কিন্তু আধুনিক সংগীতের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় ‘সাঈদ আহমদ ও সম্প্রদায়’ নামে একটি দল গঠন করেন, যে দলটি রেডিও স্টেশন থেকে অর্কেস্ট্রা পরিবেশন করত। তিনি অনুষ্ঠানটির পরিচালক ছিলেন এবং স্ক্রিপ্ট লিখতেন কবি শামসুর রাহমান। লন্ডনে পড়ার সময় তিনি প্রাতিষ্ঠানিক লেখাপড়ার সঙ্গে সঙ্গে ওয়েস্টার্ন মিউজিক শেখেন। বিবিসিতে খণ্ডকালীন সেতার ও অর্কেস্ট্রা বাজাতেন উর্দু সার্ভিস, বাংলা সার্ভিস, ওয়েস্ট বেঙ্গল সার্ভিস ও শ্রীলঙ্কা সার্ভিসে। অনেক বিখ্যাত শিল্পীর সঙ্গেও তিনি সেতার বাজিয়েছেন। তাঁকে বাংলা ‘থিয়েটার অব দি অ্যাবসার্ড’ নাট্যধারার পুরোধা বলা হয়। ১৯৮২ সালে তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনে ‘বিশ্বনাটক’ অনুষ্ঠান করতেন। ‘দ্য থিং’, ‘কালবেলা’, ‘তৃষ্ণায়’, ‘মাইলপোস্ট’, ‘প্রতিদিন একদিন’ তাঁর উল্লেখযোগ্য নাটক। তিনি জর্জটাউন ইউনিভার্সিটি, আমেরিকান ইউনিভার্সিটি ও ক্যাথলিক ইউনিভার্সিটির অতিথি অধ্যাপক ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত ও নাট্যকলা বিভাগে খণ্ডকালীন শিক্ষকতা করেছেন। তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে ‘বাংলাদেশের সুরস্রষ্টারা’, ‘জীবনের সাতরং’ ও ‘ঢাকা আমার ঢাকা’ উল্লেখযোগ্য। বাংলা একাডেমি পুরস্কার, একুশে পদকসহ নানা পুরস্কারে তিনি ভূষিত হয়েছেন। ২০১০ সালের ২১ জানুয়ারি তিনি মারা যান।

[বাংলাপিডিয়া অবলম্বনে]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা