kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

ব্যক্তিত্ব

২১ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

চন্দ্রশেখর ভেঙ্কট রামন

নোবেলজয়ী পদার্থবিজ্ঞানী চন্দ্রশেখর ভেঙ্কট রামনের জন্ম ভারতের তিরুচ্চিরাপল্লীতে ৭ নভেম্বর ১৮৮৮ সালে। প্রথমে তিনি সেন্ট আলয়সিয়াস অ্যাংলো-ইন্ডিয়ান হাই স্কুলে অধ্যয়ন করেন। ১১ বছর বয়সে ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন এবং ১৩ বছর বয়সে বৃত্তির মাধ্যমে এফএ পরীক্ষায় পাস করেন। ১৯০২ সালে তিনি মাদ্রাজে প্রেসিডেন্সি কলেজ চেন্নাই-এ যোগ দেন, যেখানে তাঁর বাবা গণিত ও পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক ছিলেন। ১৯০৪ সালে তিনি মাদ্রাজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাচেলর অব আর্টস পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করে পদার্থবিদ্যায় স্বর্ণপদক লাভ করেন। ১৯০৭ সালে তিনি মাস্টার অব সায়েন্স ডিগ্রি অর্জন করেন। সরকারি চাকরিতে যোগ দেওয়ার মধ্য দিয়ে তাঁর কর্মজীবন শুরু হয়। ১৯১৭ সালে তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক হিসেবে নিযুক্ত হন। একই সঙ্গে তিনি ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য কালটিভেশন অব সায়েন্সে গবেষণা চালিয়ে যান, যেখানে তিনি অবৈতনিক সচিব ছিলেন। তিনি তাঁর কর্মজীবনের এই সময়টিকে সুবর্ণ যুগ হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন। ১৯২৬ সালে ভারতীয় পদার্থবিজ্ঞানের সাময়িক পত্রিকা প্রতিষ্ঠিত করেন এবং তিনি প্রথম সম্পাদক ছিলেন। সাময়িক পত্রিকার দ্বিতীয় খণ্ডে প্রভাব আবিষ্কারের প্রতিবেদনসহ তাঁর বিখ্যাত নিবন্ধ ‘একটি নতুন বিকিরণ’ প্রকাশিত হয়। তিনি রামন ক্রিয়া আবিষ্কারের জন্য বিখ্যাত হয়ে আছেন। ১৯৩০ সালে তিনি পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। নোবেল পুরস্কারের পেছনে ছিল আলোর বিচ্ছুরণ বিষয়ে তাঁর মৌলিক আবিষ্কার। বিজ্ঞানের নোবেল পুরস্কার পাওয়ার জন্য তিনি প্রথম এশীয় এবং প্রথম অশ্বেতাঙ্গ ছিলেন। ২১ নভেম্বর ১৯৭০ সালে তিনি মারা যান।

[উইকিপিডিয়া অবলম্বনে]

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা