kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ব্যক্তিত্ব

২১ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

ফজিলতুন্নেসা

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম মুসলিম ছাত্রী ফজিলতুন্নেসার জন্ম টাঙ্গাইল জেলায় ১৮৯৯ সালে। কাজী মোতাহার হোসেন লিখেছেন—‘ফজিলতুন্নেসা অসামান্য সুন্দরীও ছিলেন না, বীনানিন্দিত মঞ্জুভাষিণীও ছিলেন না। ছিলেন অঙ্কের এমএ এবং একজন উঁচুদরের বাক্পটু মেয়ে।’ তাঁর বাবার নাম ওয়াজেদ আলী খাঁ এবং মা হালিমা খাতুন। ছয় বছর বয়সে তাঁকে করটিয়ার প্রাইমারি স্কুলে ভর্তি করানো হয়। ১৯২১ সালে তিনি প্রথম বিভাগে ম্যাট্রিক ও ১৯২৩ সালে ইডেন কলেজ থেকে প্রথম বিভাগে আইএ পাস করেন। ১৯২৫ সালে কলকাতার বেথুন কলেজ থেকে তিনি প্রথম বিভাগে বিএ পাস করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯২৭ সালে গণিত শাস্ত্রে এমএ প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হন। ১৯২৮ সালে বিলেতে যান উচ্চশিক্ষা গ্রহণের জন্য। নিখিলবঙ্গে তিনিই প্রথম মুসলিম মহিলা গ্র্যাজুয়েট। লন্ডন থেকে ফিরে ১৯৩০ সালে তিনি কলকাতায় প্রথমে স্কুল ইন্সপেক্টর এবং ১৯৩৫ সালে বেথুন কলেজে গণিতের অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। দেশভাগের পর তিনি ঢাকায় এসে ইডেন কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করেন ১৯৪৮ সালে। ১৯৫৭ সাল পর্যন্ত তিনি ইডেন কলেজের অধ্যক্ষ ছিলেন। নারীশিক্ষা ও নারী মুক্তি সম্পর্কে সওগাতসহ অনেক পত্রিকায় তাঁর বিভিন্ন প্রবন্ধ ও গল্প প্রকাশিত হয়েছে। কবি কাজী নজরুল ইসলাম, কাজী মোতাহার হোসেন প্রমুখ ব্যক্তির সান্নিধ্য লাভ করেছেন। নজরুল তাঁকে প্রেম নিবেদন করেন বলেও জানা যায়। কিন্তু তিনি নজরুলের আবেদন প্রত্যাখ্যান করেন। তাঁর বিলেত গমন উপলক্ষে নজরুল ‘বর্ষা-বিদায়’ নামক একটি কবিতা লেখেন। ১৯৭৭ সালের ২১ অক্টোবর তিনি মারা যান।

[উইকিপিডিয়া অবলম্বনে]

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা