kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ব্যক্তিত্ব

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

আবুল হুসেন

প্রাবন্ধিক, চিন্তাবিদ ও সমাজ সংস্কারক আবুল হুসেনের জন্ম যশোরে ১৮৯৬ সালের ৬ জানুয়ারি। তাঁর বাবার নাম হাজি মোহাম্মদ মুসা। ১৯১৪ সালে যশোর জিলা স্কুল থেকে তিনি ম্যাট্রিকুলেশন পাস করেন। কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে আইএ ও বিএ এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯২০ সালে অর্থনীতিতে এমএ, ১৯২২ সালে বিএল এবং ১৯৩১ সালে এমএল ডিগ্রি লাভ করেন। কলকাতার হেয়ার স্কুলে শিক্ষকতার মাধ্যমে তাঁর কর্মজীবন শুরু হয়। ১৯২১ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি ও বাণিজ্য বিভাগের লেকচারার এবং মুসলিম হলের হাউস টিউটর নিযুক্ত হন। ১৯৩২ সালে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি ছেড়ে কলকাতা হাইকোর্টে ওকালতি পেশায় যোগদান করেন। মননশীল প্রবন্ধকার হিসেবে তিনি কৃষকসমাজের দুঃখ-দুর্দশার মুক্তির পথনির্দেশ করেন তাঁর ‘বাংলার বলশী’ গ্রন্থে। রুশ বিপ্লবের প্রেরণায় অনুপ্রাণিত হয়ে তিনি ‘কৃষকের আর্তনাদ’, ‘কৃষকের দুর্দশা’ ও ‘কৃষি বিপ্লবের সূচনা’ নামক প্রবন্ধ রচনা করেন। ঢাকায় যে বুদ্ধির মুক্তি আন্দোলন হয়, তাতে তিনিই নেতৃত্ব দেন। ১৯২৬ সালে গঠিত মুসলিম সাহিত্য সমাজের মুখপত্র শিখা সম্পাদনা ও প্রকাশ করে আন্দোলনকে তিনি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেন। কাজী আবদুল ওদুদ, কাজী মোতাহার হোসেন, মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ও আবুল ফজল তাঁকে সাহায্য করেন। ঢাকার রক্ষণশীল মুসলিম সমাজ থেকে বাধা আসে এবং শেষে অবস্থা এরূপ দাঁড়ায় যে তিনি চাকরি ত্যাগ করে কলকাতায় চলে যান। তিনি ছিলেন মুক্তবুদ্ধি ও উদার চিন্তার অধিকারী; অসাম্প্রদায়িক সাহিত্য-সংস্কৃতি চর্চার অন্যতম পথিকৃৎ। ১৯৩৮ সালের ১৫ অক্টোবর কলকাতায় তাঁর মৃত্যু হয়।

[বাংলাপিডিয়া অবলম্বনে]

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা