kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ব্যক্তিত্ব

১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

বাঘা যতীন

বিপ্লবী ও ভারতে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের কর্মী বাঘা যতীনের জন্ম কুষ্টিয়া জেলার কয়া গ্রামে ৭ ডিসেম্বর ১৮৭৯ সালে। তাঁর প্রকৃত নাম যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়। তিনি কোনো অস্ত্রের সাহায্য ছাড়াই খালি হাতে বাঘ হত্যা করলে তাঁকে বাঘা যতীন নামে অভিহিত করা হয়। এন্ট্রান্স পরীক্ষা পাস করার পর তিনি সাঁটলিপি ও টাইপ শেখেন এবং বেঙ্গল গভর্নমেন্টের স্টেনোগ্রাফার নিযুক্ত হন। তিনি ছিলেন শক্ত-সমর্থ ও নির্ভীকচিত্ত যুবক। তাঁর মধ্যে আত্মমর্যাদা ও জাতীয়তাবোধ অত্যন্ত দৃঢ় ছিল। অরবিন্দ ঘোষের সংস্পর্শে এসে তিনি শরীর গঠন আখড়ায় গাছে চড়া, সাঁতার কাটা ও বন্দুক ছোড়ার প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। ১৯০৮ সালে কয়েকজন বিপ্লবীসহ তাঁকে আলীপুর ষড়যন্ত্র মামলায় জড়ানো হয়। এ মামলার বিচারে অন্যদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা হলেও সাক্ষ্য-প্রমাণের অভাবে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। পরে হাওড়া-শিবপুর ষড়যন্ত্র মামলায় গ্রেপ্তার হন এবং তাঁর সঙ্গে গ্রেপ্তারকৃতদের ‘যতীন গ্যাং’ নামে অভিহিত করা হয়। অত্যাচারের শিকার হয়ে কয়েকজনের মৃত্যু হয়। তিনি মামলা থেকে মুক্তি পেলেও তাঁকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়। কারাগারে থাকা অবস্থায় তিনি ও নরেন সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে ক্ষমতা দখলের পরিকল্পনা করেন। তাঁরা দেশপ্রেমিক বিভিন্ন দলকে ঐক্যবদ্ধ করার পরিকল্পনা করেন। যতীন ও রাসবিহারী বসুকে যথাক্রমে বাংলা ও উত্তর ভারতের নেতা মনোনীত করা হয়। কলকাতার জার্মান কনসাল জেনারেলের সঙ্গে আলোচনার জন্য ইন্ডিয়ান ইনডিপেনডেন্স পার্টি তাঁর কাছে একজন দূত পাঠায়। এরই মধ্যে তাঁকে বিপ্লবী দলগুলোর কমান্ডার ইন চিফ করা হয়। ১৯১৫ সালের ১০ সেপ্টেম্বর তিনি নিহত হন।

[বাংলাপিডিয়া অবলম্বনে]

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা