kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ব্যক্তিত্ব

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

জুলিয়াস ফুচিক

সাংবাদিক ও সাম্যবাদী বিপ্লবী জুলিয়াস ফুচিকের জন্ম চেকোস্লোভাকিয়ায় ২৩ ফেব্রুয়ারি ১৯০৩ সালে। ছাত্রাবস্থা থেকে রাজনীতি, সংগীত ও সাহিত্যের প্রতি তাঁর ঝোঁক ছিল। ১২ বছর বয়সে পত্রিকা প্রকাশ করার চিন্তাভাবনা তাঁর মাথায় আসে। পত্রিকাটির নাম রেখেছিলেন ‘স্লোভান’। ১৯২০ সালে কলেজে পড়ার সময় চেকোস্লোভাকিয়া সামাজিক গণতান্ত্রিক শ্রমিক দলে যোগদান করেন। ১৯২১ সালে চেকোস্লোভাকিয়া কমিউনিস্ট পার্টির সক্রিয় সদস্য হন এবং দলের রাজনৈতিক মুখপত্রে সাংস্কৃতিক বিষয়ের ওপর লেখালেখি ও সাংবাদিকতার কাজে যুক্ত হন। ১৯২৯ সালে ‘ভোরবা’ পত্রিকার প্রধান সম্পাদক এবং কমিউনিস্ট পার্টির মুখপত্র ‘রুদে প্রাভো’তে নিয়মিত লেখা তাঁকে সাংবাদিক হিসেবে প্রতিষ্ঠা দেয়। রাজনৈতিক কলাম লেখার জন্য একাধিকবার গ্রেপ্তার হতে হয় তাঁকে। ১৯৩০ সালে প্রথমবার সোভিয়েত ইউনিয়নে যান এবং সমাজতান্ত্রিক দেশ সম্পর্কে তাঁর সেই অভিজ্ঞতার কথা বই আকারে বের হয়। নাৎসি আক্রমণের আগেই ১৯৩৮ সালে দেশজুড়ে কমিউনিস্ট পার্টি নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়। ১৯৩৯ সাল নাগাদ হিটলারের নাজি বাহিনী চেকোস্লোভাকিয়া দখল করে। তিনি গোপন আস্তানা থেকে পত্রিকা, হ্যান্ডবিল ইত্যাদি প্রকাশ ও প্রচার করতে থাকেন। ১৯৪২ সালে গোপন আস্তানায় হানা দিয়ে গেস্টাপো বাহিনী আরো ছয়জন কমিউনিস্ট কর্মীর সঙ্গে তাঁকে গ্রেপ্তার করে। তাঁর শ্রেষ্ঠ সাহিত্যকীর্তি ‘লেটার ফ্রম গ্যালো’ বা ‘ফাঁসির মঞ্চ থেকে’ পৃথিবীজুড়ে প্রায় ৯০টি ভাষায় অনূদিত ও প্রকাশিত হয়েছে। ১৯৪৩ সালে তাঁকে জার্মানিতে পাঠানো হয়। নিষিদ্ধ রাজনৈতিক কার্যকলাপ ও ষড়যন্ত্রের অভিযোগে বিচারের প্রহসনান্তে ৮ সেপ্টেম্বর ১৯৪৩ সালে তাঁকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করে নাজি কর্তৃপক্ষ।

[উইকিপিডিয়া অবলম্বনে]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা