kalerkantho

শনিবার । ২১ ফাল্গুন ১৪২৭। ৬ মার্চ ২০২১। ২১ রজব ১৪৪২

ব্যক্তিত্ব

৮ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

লক্ষ্মীনারায়ণ রায়চৌধুরী

উপমহাদেশের প্রথম পেশাদার আলোকচিত্রী-চিত্রকর লক্ষ্মীনারায়ণ রায়চৌধুরীর জন্ম ১৮৬৬ সালের ১১ জানুয়ারি ভারতের কোতরংয়ে। তাঁর বাবা যদুনাথ ও মা মাতঙ্গিনী। ১৬ বছর বয়সে তাঁর বাবা তাঁকে বিবাহ দেন অপূর্বময়ীর সঙ্গে। এতে কলকাতার তদানীন্তন বুদ্ধিজীবীসমাজের সদস্যদের সঙ্গে পরিচিত হন এবং ছবি আঁকতে শেখেন। বাবার সংসারে স্ত্রীকে নিয়ে থাকতে তাঁর আত্মসম্মানে লাগছিল বলে তিনি ছবি আঁকার মাধ্যমে রোজগারের প্রয়াস করতে থাকেন। ব্যাবসায়িক উপলক্ষে বাহওয়ালপুরের আমিরের প্রতিনিধি কলকাতায় ব্রিটিশ ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে এলে তাঁর সঙ্গে পরিচয়ের সুযোগ হয়। আমিরের প্রতিনিধি তাঁর অঙ্কনপ্রতিভায় মুগ্ধ হন এবং তাঁকে বাহওয়ালপুর রাজ্যে রাজপরিবারের সদস্যদের ছবি আঁকার জন্য অতিথিরূপে আমন্ত্রণ জানান। পরে আমির তাঁর আঁকা প্রতিকৃতি দেখে তাঁকে প্রশংসাপত্র দেন, যাতে তিনি বিভিন্ন রাজপরিবারে গিয়েও ছবি এঁকে রোজগার করতে পারেন। ১৮৩০ সালে লুই ড্যাগোরো ক্যামেরা আবিষ্কার করেন। কিন্তু সেটিতে একবারে শুধু একটিই ফটো তোলা যেত। নতুন বেলোলেন্স ক্যামেরার আবির্ভাব ঘটে এই সময়ে। ফটোগ্রাফির জন্য ডার্করুমের প্রয়োজন অনুভূত হলে তিনি একটি বেলোলেন্স ক্যামেরা কিনে ১৮৮৬ সালে লাহোরে ব্যবসার সূত্রপাত করে নাম রাখলেন রায়চৌধুরী অ্যান্ড কম্পানি : ফটোগ্রাফার্স অ্যান্ড আর্টিস্টস। মুখাকৃতি এঁকে তা থেকে তিনি তৈলচিত্র তৈরি করতেন। রাজপরিবারের সদস্যদের বেশ কিছুক্ষণ তাঁর সামনে বসে থাকতে হতো এবং সে কারণে তারা বিরক্ত হতো। পর্দাপ্রথার জন্য রাজপরিবারগুলোতে মহিলা সদস্যদের তৈলচিত্র আঁকতে তাঁর অসুবিধা হতো। তাঁর প্রচেষ্টায় সেই সমস্যা রইল না। ছবি আঁকা ও তোলার প্রাথমিক অবস্থা ও উন্নয়নে তিনি বিশেষ ভূমিকা রাখেন। ১৯৩৩ সালের ৮ নভেম্বর তিনি মারা যান।

[উইকিপিডিয়া অবলম্বনে]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা