kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৮ জুন ২০১৯। ৪ আষাঢ় ১৪২৬। ১৪ শাওয়াল ১৪৪০

ব্যক্তিত্ব

২৭ জুন, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্যক্তিত্ব

সুধীন দাশ

সংগীতজ্ঞ ও সংগীত গবেষক সুধীন দাশের জন্ম ৩০ এপ্রিল ১৯৩০ সালে কুমিল্লায়। তাঁর বাবা নিশিকান্ত দাশ ও মা হেমপ্রভা দাশ। ছোটবেলা থেকেই তিনি বাউণ্ডুলে ধাঁচের ছিলেন, কিন্তু পড়াশোনায় বরাবরই ভালো করতেন। পড়ালেখায় তাঁর হাতেখড়ি হয় রামচন্দ্র পাঠশালায়। তৃতীয় শ্রেণিতে উঠে তিনি ঈশ্বর পাঠশালায় ভর্তি হন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পাঠশালাটি বন্ধ হয়ে গেলে তিনি কুমিল্লা জেলা স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করে ভর্তি হন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে। কলেজে পড়ার সময় থেকেই তিনি পড়াশোনার বাইরে বিভিন্ন বিষয়ের দিকে ঝুঁকে পড়েন। এ সময় দাবা খেলার নেশা তাঁকে পেয়ে বসে। শেষ পর্যন্ত তাঁর আর বিএ পরীক্ষা দেওয়া হয়নি। বড় দাদা সুরেন দাশ সংগীতের শিক্ষক ছিলেন। তাঁর কাছ থেকে তিনি সংগীতের অনুপ্রেরণা লাভ করেন। সুরেন দাশ যে ঘরে ছাত্র-ছাত্রীদের গান শেখাতেন, সেই ঘরের পেছনে এসে তিনি দাঁড়িয়ে থাকতেন। একদিন সুরেন দাশ রেগে গিয়ে শিক্ষার্থীদের বলেন, ‘এত চেষ্টা করেও তোমাদের শেখাতে পারছি না, অথচ ঘরের পেছনে যারা ঘুরঘুর করছে, তারা তো ঠিকই শিখে চলে যাচ্ছে।’ এ কথাগুলো তাঁর জীবনে বড় প্রেরণা হয়ে কাজ করে। ১৯৪৮ সালে তিনি বেতারে নিয়মিতভাবে নজরুলসংগীত গাইতে শুরু করেন। নজরুলের মৃত্যুর পর তিনি মনোনিবেশ করেন নজরুলসংগীতের শুদ্ধ স্বরলিপি প্রণয়নে। ১৯৮২ সালের জানুয়ারি মাসে ২৫টি স্বরলিপি নিয়ে নজরুল সুরলিপির প্রথম খণ্ডটি প্রকাশ করে নজরুল একাডেমি। পরে নজরুল ইনস্টিটিউট থেকে বের হয় আরো ৩৩টি খণ্ড। বাংলাদেশে সংগীতের ক্ষেত্রে যাঁরা বিশেষ অবদান রেখেছেন তিনি তাঁদের একজন। সংগীতক্ষেত্রে অবদানের জন্য তিনি ১৯৮৮ সালে একুশে পদক লাভ করেন। ২৭ জুন ২০১৭ সালে তাঁর মৃত্যু হয়।

[উইকিপিডিয়া অবলম্বনে]

মন্তব্য