kalerkantho

মঙ্গলবার । ৫ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

গণতন্ত্রকে আরো উন্নত ও সুসংহত করতে হবে

২৫ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সম্প্রতি ব্রিটিশ সাময়িকী দি ইকোনমিস্ট ম্যাগাজিনের গবেষণাপ্রতিষ্ঠান দি ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট প্রকাশিত বিশ্ব গণতন্ত্র সূচকে ১৬৫টি দেশের মধ্যে আগেরবারের চেয়ে আট ধাপ এগিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ৮০তম। এই অবস্থান সন্তোষজনক না হলেও এই ধারা অব্যাহত রেখে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে আরো শক্তিশালী করতে সব পক্ষকেই এগিয়ে আসতে হবে। গণতন্ত্রকে শক্তিশালী ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত করতে হলে গণতন্ত্রের দাবিদার সব পক্ষকেই গণতান্ত্রিক হতে হবে। আর গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো সহনশীলতা এবং অন্যের মতামতকে সম্মান দেওয়া। সাম্প্রদায়িকতা ও প্রতিহিংসার রাজনীতি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার উন্নয়নের পথে বড় অন্তরায়। সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মীয় রাজনীতি সমর্থন করে কখনো গণতন্ত্রে বিশ্বাসী হওয়া যায় না। যুগ যুগ ধরেই আমাদের দেশের মানুষ গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী। কিন্তু একটি স্বার্থান্বেষী মহল দেশের মানুষকে নানাভাবে বিভ্রান্ত করে বাঙালি জাতির হাজার বছরের অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক সংস্কৃতিকে ধ্বংস করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এই অপশক্তির তৎপরতার কারণেই দেশে সুস্থ ধারার রাজনীতি বজায় রাখা যেমন সম্ভব হচ্ছে না, তেমনি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাও উন্নত হচ্ছে না। আমাদের রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে দেশ ও জাতির মঙ্গলের চেয়ে ক্ষমতায় যাওয়া বা থাকাটাই প্রাধান্য পেয়ে থাকে। ক্ষমতায় যাওয়া বা থাকার জন্য হিংসা বা যেকোনো অগণতান্ত্রিক পন্থা অবলম্বন করতেও দলগুলো কোনো রকম দ্বিধা বোধ করে না। এ কারণে আমাদের নির্বাচনব্যবস্থা, বহুদলীয় রাজনীতি, গণতান্ত্রিক পরিবেশ, নাগরিক অধিকার অর্থাৎ গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের কাঙ্ক্ষিত উন্নতি সম্ভব হচ্ছে না। দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখতে হলে সুস্থ ধারার রাজনীতি ও শক্তিশালী গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। দেশের সম্মান বাড়াতে ভবিষ্যতে গণতন্ত্র সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান যাতে আরো উন্নতির দিকে যায়, সে জন্য সব দলকেই ইতিবাচক ভূমিকা পালন করতে হবে। মনে রাখতে হবে, ক্ষমতার চেয়েও দেশ বড়। 

বিপ্লব বিশ্বাস

ফরিদপুর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা