kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ জানুয়ারি ২০২০। ৭ মাঘ ১৪২৬। ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

মানবতার স্বার্থে গণহত্যার বিচার জরুরি

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের রায় চূড়ান্তভাবে কার্যকর করার বিষয়টি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্তের ওপরই নির্ভর করে। আশা করব, আইসিজেতে যেহেতু মামলাটির বিচার শুরু হয়েছে, তাই এই দেশগুলো এখন আইনকে তার আপন গতিতে চলতে সহায়তা করবে। রোহিঙ্গাদের ওপর মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটিত হলেও অনেক দেশ ভূরাজনৈতিক ও সংকীর্ণ জাতীয় স্বার্থের বিবেচনায় এর বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়া থেকে বিরত রয়েছে। আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে শুনানি শুরু এবং এই মামলার ফলাফল এই দেশগুলোকে তাদের অবস্থান বদলের সুযোগ করে দিতে পারে। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে যা ঘটেছে, জাতিসংঘের তরফেও শুরুতে তাকে গণহত্যা বলা হয়নি, বলা হয়েছিল ‘এথনিক ক্লিনজিং’। পরে অবশ্য তারা পরিষ্কারভাবে গণহত্যা সংঘটিত হওয়ার কথা বলেছে। আদালতের সামনে এখন যে বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ তা হলো, মিয়ানমারে কোনো ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। যদিও বহু স্বাধীন সংস্থার কাছে তার অকাট্য সাক্ষ্যপ্রমাণ আছে। মামলার বিচার কার্যক্রম চলাকালে বাংলাদেশের তরফ থেকে সর্বাত্মক কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রাখতে হবে।

বিলকিছ আক্তার

হরিশ্বর, কাউনিয়া, রংপুর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা