kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

গল্প অন্তরাল

'১৫ বছর ধরে এ অ্যালবামের গান লিখেছি'

চলচ্চিত্র, গান কিংবা নাটক তৈরির অন্তরালেও তৈরি হয় আরো এক নাটক, নতুন কোনো গল্প। না-বলা সেই সব ঘটনা কিংবা গল্প নিয়ে এ আয়োজন

   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'১৫ বছর ধরে এ অ্যালবামের গান লিখেছি'

ঈদকে সামনে রেখে লোকগান নিয়ে বাজারে এসেছে মিলন মাহমুদের পঞ্চম একক অ্যালবাম 'মন যমুনা'। আজকের গল্প অন্তরালে অ্যালবামটি নিয়ে কথা বলেছেন তিনি। সংগীতজীবনের শুরু থেকেই আমি লোকগান গাই। লালন, হাছন রাজা, শাহ আবদুল করিম কিংবা জসীমউদ্দীনের গান গাইতাম বেশ আগ্রহ নিয়ে। অবশ্য তাঁদের গান নিয়ে অ্যালবাম করার কথা কখনোই ভাবিনি। বরং নিজের লেখা লোকগান নিয়ে অ্যালবাম করার স্বপ্ন অনেক আগে থেকে। প্রায় ১৫ বছর ধরে এ অ্যালবামের জন্য গান লিখেছি। তবে অ্যালবামটি প্রকাশের পরিকল্পনা গত বছরের। সব কাজ গুছিয়ে রেকর্ডিংয়ে নেমেছি এ বছরের শুরুতে। এতে 'মন ভরে না' গানটির ডবল ভার্সনসহ ৯টি গান রয়েছে। সব গানের কথা, সুর ও সংগীতায়োজন আমারই। এবারই প্রথম সংগীত পরিচালক হিসেবে কাজ করলাম। গান তৈরি করেছি এফ এ সুমনের স্টুডিওতে। আমার সঙ্গে সংগীতায়োজনেও ছিলেন তিনি। ভয়েস রেকর্ডিং হয়েছে বাপ্পা মজুমদারের স্টুডিওতে। সময় লেগেছে চার শিফট। এ কাজে সহায়তা করার জন্য তাঁকে অনেক ধন্যবাদ। 'স্বপ্ন' গানটিতে আমার সঙ্গে কণ্ঠ দিয়েছেন মেরী। এটাই তাঁর জীবনের প্রথম মৌলিক গান। 'বৈশাখ' নিয়ে একটি গান আছে। গত বৈশাখে। কয়েকটি চ্যানেলে গানটি প্রচারের পর বেশ সাড়া পেয়েছিলাম। সব মানুষই অন্তরে কাউকে লালন করে। কিন্তু যাকে লালন করে সে তাকে লালন করে কি না এমন গল্প নিয়েই 'মন যমুনা' গানটি লিখেছি। এক দিন গানটির স্থায়ী এবং অন্তরা লেখার পর বাসা (রূপনগর) থেকে শিয়ালবাড়ীর দিকে যাচ্ছিলাম। পথের মধ্যে আমার মাথায় গানটির শেষ অন্তরা চলে আসে। সুন্দরভাবে গানটি শেষ করতে পেরে বেশ আনন্দ পেয়েছিলাম। আমি সাধারণত একটি গান তৈরি হলে বাসায় নিয়ে শুনি কোনো ভুলত্রুটি থাকলে তা সংশোধনের জন্য। একদিন সিডি বার্ন করতে গিয়ে কম্পিউটারে সিডি ঢুকালাম তারপরই বিদ্যুৎ চলে গেল। সেদিন অযথাই অনেকক্ষণ বসে থাকতে হয়েছিল। অনুলিখন : রবিউল ইসলাম জীবন

বিজ্ঞাপন



সাতদিনের সেরা